দিনাজপুর সংবাদাতাঃ সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার সর্বত্র অতিমাত্রায় পলিথিন ব্যাগ ব্যবহারের কারণে হুমকির মুখে পড়েছে জনস্বাস্থ্য ও পরিবেশ। উপজেলার একটি পৌরসভা ও ১১টি ইউনিয়নের বিভিন্ন হাট-বাজারে পলিথিনে সয়লাব হয়ে গেলেও কোনো ব্যবস্থা না নেওয়ায় দিন দিন এ ব্যবসার পরিধি আরো বেড়েছে।

সরকারের পক্ষ থেকে পাটের ব্যাগ ব্যবহারের ওপর গুরুত্ব দিলেও পণ্য বিক্রির ক্ষেত্রে অবাধে ব্যবহার হচ্ছে নিষিদ্ধ পলিথিন ব্যাগ। এসব পলিথিন ব্যাগ বা নষ্ট না হওয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন কৃষক এবং পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। সরজমিনে উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজার ঘুরে দেখা গেছে, আইনের তোয়াক্কা না করে খুচরা ব্যবসায়ীরা পণ্য বিক্রির সময় ব্যবহার করচ্ছেন নিষিদ্ধ পলিথিন।

পলিথিন ব্যাগের উৎপাদন, ব্যবহার, বিপণন ও বাজারজাতের কারণ নিষেধাজ্ঞা থাকলেও মানা হচ্ছেনা কোনো নিয়মই। কাঁচা বাজার, মাংস,কনফেকশনারী, মুদিখানা,ফাষ্টফুট ফল,মিষ্টি সহ বিভিন্ন খাদ্যদ্রব্য দোকানে পলিথিন ব্যাগে করে ক্রেতাদের হাতে তুলে দিচ্ছে দোকানিরা। অতচ ২০০২ সালে আইন করে পলিথিন ব্যাগ উৎপাদন, ব্যবহার, বিপণন ও বাজারজাতের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেন সরকার। কিন্তু এ আইনের প্রয়োগ নেই।

এ ব্যাপার সচেতন মহল বলছেন, পলিথিন প্রস্তুতকারী কারখানার উৎপাদন বন্ধ না করে শুধু বাজারে ভ্রাম্যমাণ অভিযান চালানোর মাধ্যমে এই পলিথিন পণ্য ব্যবহার বন্ধ করা সম্ভব নয়। তাই প্রস্তুতকারী কারখানাগুলোতে অভিযান চালিয়ে উৎপাদ বন্ধ করতে হবে। পাশাপাশি জনসচেতনতা বৃদ্ধি করে পলিথিন ব্যাগের বিকল্প হিসেবে পাটের ব্যাগ উৎপাদন ব্যবহার বাড়ানো দরকার।

এ ছাড়া বীরগঞ্জ উপজেলায় পলিথিন ব্যাগের বিরুদ্ধে নিয়মিত মনিটরিং নেই। এ কারণে অসাধু ব্যবসায়ী নিষিদ্ধ পলিথিন ব্যাগ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানগুলো দেদারছে উৎপাদন করছেন অপচনশীল এসব ব্যাগ। এতে স্বাস্থ্য ঝুঁকি বাড়ার পাশাপাশি নষ্ট হচ্ছে পরিবেশ। এ ব্যাপারে বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা:মো: আনোয়ার উল্ল্যাহ জানান,পলিথিনে মোটানো খাবার মানুষের ক্যান্সার ও চর্ম রোগে আক্রমণ হতে পারে।

এ ছাড়া পলিথিনে মাছ, মাংস প্যাটিং করলে আব্যয়বীয় ব্যাকটেরিয়া সৃষ্টি হয়, যা দ্রুত পচনে সহায়তা করে। এজন্য পলিথিনে খাবার বহন করা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। অন্যদিকে উজ্জ্বল রঙের পলিথিনে রয়েছে সিসা ও ক্যাডমিয়াম, যার সংস্পর্শে শিশুদের দৈহিক বৃদ্ধি ক্ষতিগ্রস্ত ও চর্ম প্রদাহের সৃষ্টি হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য