দিনাজপুর সংবাদাতাঃ শনিবার সকালে দিনাজপুর শহরের পশ্চিম দপ্তরী পাড়ার এক বখাটে যুবক স্ত্রীকে নির্যাতন করে মাথার চুল কেটে দিয়েছে। এ সংবাদ লেখা পর্যন্ত থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

খোঁজ নিলে স্থানীয় এলাকাবাসী জানায়, যৌতুকের দাবী মেটাতে না পারায় জুয়ারু স্বামী হাফিজুরের পুত্র সুমন (২৩), মা,বোনের সহযোগিতায় ঘরের দরজা বন্ধ করে এক সন্তানের মা স্ত্রী সোহাগীকে নির্যাতন করে মাথার চুল কেটে দেয়।

সোহাগীর চিৎকারে প্রতিবেশী সহ আশেপাশের লোকজন ছুটে এসে ঘরের দরজা ভেঙ্গে তাকে উদ্ধার করে নিরাপত্তার জন্য পার্শ্ববর্তী বাড়ীতে নিয়ে যায়। এ ব্যাপারে নির্যাতিত সোহাগ জানায়, গত ৩ বছর পূর্বে পারিবারিকভাবে তাদের বিবাহ হয়।

বিবাহের সময় তার স্বামী যৌতুক বাবদ ১ লক্ষ টাকা মূল্যের একটি মোটর সাইকেল দাবী করে। সোহাগীর বাবা যৌতুক হিসাবে ১ম পর্যায়ে তার জামাইকে নগদ ৩৫ হাজার টাকা দেয়। এরপর থেকেই যৌতুকের বাকী টাকা আনার জন্য বার-বার মার ধর করে সোহাগীকে বাবার বাড়ীতে পাঠিয়ে দিত স্বামী সুমন।

উল্লেখ্য, সোহাগীর স্বামী সুমন তার শ্বশুরবাড়ী এলাকায় একটি জমি বন্ধক নেয়। এই বন্ধককৃত জমি বাৎসরিক চাষাবাদের জন্য সোহাগীর বাবার সাথে জামাইয়ের ৭ হাজার টাকার চুক্তিবদ্ধ হয়।

গত ২৭ ফেব্রয়ারী’২০ চুক্তিকৃত নগদ ৭ হাজার টাকা নিয়ে সোহাগী বাবার বাড়ী থেকে স্বামীর বাড়ীতে আসে। স্বামীকে ৭ হাজার টাকার মধ্যে ৫ হাজার টাকা দেয়। বাকী ২ হাজার টাকা অন্যত্র সরিয়ে রাখায় স্বামী সুমনসহ তার মা ও বোন ক্ষিপ্ত হয়ে সোহাগীর উপর শারিরীক নির্যাতন করে। একপর্যায়ে মা তার সন্তান সুমনকে নির্দেশ দেয় তোর স্ত্রীর মাথার চুল কেটে দিলে শিক্ষা পাবে।

মায়ের কথামত সুমন তার বোন সুমির সহযোগিতায় ঘরের দরজা বন্ধ করে নির্যাতনের একপর্যায়ে মাথার চুল কেটে দেয়। এ বিষয়ে সুমন সহ পরিবারের লোকজন জানায়, ৭ হাজার টাকার মধ্যে ২ হাজার টাকা লুকিয়ে রাখার অপরাধে সোহাগীর মাথার চুল কেটে দেওয়া হয়েছে। এলাকাবাসীরা জানায়, সুমন আইপিএল জুয়ারু হিসাবে এলাকায় খ্যাত।

এই কারণেই তার প্রায় টাকার প্রয়োজন হতো। সে জন্য যৌতুকের টাকা আদায়ের জন্য তার স্ত্রীকে নির্যাতন করে টাকার জন্য বাপের বাড়ীতে পাঠাত। এলাকাবাসী এ ধরনের ঘটনা যাতে আর না ঘটে সেজন্য ঊর্ধ্বতন প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য