দিনাজপুর সংবাদাতাঃ নাম তার রাজকুমার। চেহারাও রাজকুমারের মতই। ছিলেন অসম্ভব মেধাবী। ঢাকা বোর্ড থেকে বিজ্ঞান বিভাগে সম্মিলিত মেধাতালিকায় পেয়েছিলেন উচ্চতম স্থান।

যথারীতি সুযোগ পেয়ে ভর্তি হয়েছিলেন ঢাকা মেডিকেল কলেজে। কিন্তু স্বাস্থ্য বিড়ম্বনায় আজ মাত্র ৫০ টাকার দিনমজুর। ঢামেক কে-৪০ ব্যাচের শিক্ষার্থী ছিলেন রাজকুমার।

রাজকুমারের ছোট ভাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তেন। তিনিও একই রোগে আক্রান্ত হয়ে বর্তমানে মানসিক রোগী। মানবিক এই বিষয়টি দিনাজপুর নিউজে প্রকাশিত হলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যাম ফেইসবুকে ছড়িয়ে পড়ে।

এতে জেলা প্রশাসনসহ বিষয়টি সকলের নজরে আসে, ২৭ ফেব্রয়ারী বৃহস্পতিবার ফুলবাড়ী উপজেলা পরিষদে ডেকে নিয়ে রাজকুমার ও তার সহদরভাই আনন্দ শীল এর খোজ খবর নিয়ে মাসিক ভিত্তিতে প্রতিবন্ধী ভাতা কার্ড তুলে দেন জেলা প্রশাসক মাহমুদুল আলম।

সেই সাথে বর্তমানে যে বাড়িটি আছে সেটি উপজেলা প্রশাসনের দেওয়া। সেই ঘরসহ আরো সরকারি জমি বরাদ্দ দিয়ে নতুন ঘর তৈরি করে দেওয়ার কথা বলেন এবং ভবিষ্যতের জন্য একটি স্থায়ী তহবিল করে দেওয়ার আশ্বাসও দেন জেলা প্রশাসক মাহমুদুল আলম।

এসময় রাজকুমারের মা পার্বতী শীল এর সাথে তাদের পরিবারের খোজ খবর নিয়ে কথা বলেন তিনি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য