ঠাকুরগাঁওয়ে অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত হয়ে দুদিনে একই পরিবারের দুজনের মৃত্যু হয়েছে। অসুস্থ্য হয়ে আরো তিনজন ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। জেলার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার সনগাঁও গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পর স্বাস্থ্য বিভাগের একটি প্রতিনিধি দল ওই গ্রাম পরিদর্শন করেছেন।

বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার সনগাঁও গ্রামের হাফিজুল ইসলামের স্ত্রী মিনা বেগম গত শুক্রবার রাতে হঠাৎ অসুস্থ্য হয়ে মারা যায়। পরদিন শনিবার রাতে বড়ভাই হাজিরুলের স্ত্রী পশিনা বেগম অসুস্থ্যবোধ করলে স্বজনরা বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরে গেলে গতকাল রবিরার সকালে সেও মারা যায়।

এ ঘটনার পর ওই পরিবারের আরো তিনজন অসুস্থ্য হয়ে পরলে তাদেরকে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের একটি প্রতিনিধি দল ঘটনার কারন জানতে ওই গ্রাম পরিদর্শন করেন। এদিকে গত দুদিনে এই পরিবারের ২জন মারা যাওয়ার পর অন্যান্য সদস্যরা অসুস্থ্য হয়ে পরায় আতঙ্কে রয়েছেন স্বজনরা।

স্বজনরা জানান, হঠাৎ করে অসুস্থ্য হয়ে পরে মিনা বেগম চিকিৎসা নেয়ার আগেই মারা যায় সে। পরদিন আবার হঠাৎ অসুস্থ্য পরে পশিনা বেগম চিকিৎসা নেয়া হলে ভাল হয়। বাড়ি আসার পর সেও হাঠৎ মারা যায়। কি হলো আমরা বুঝতে পারছি না। এ ঘটনার পর নিহত মিনা বেগমের মেয়ে তানজিনা আক্তার, নিহত পশিনা বেগমের শাশুরি হাজেরা খাতুন ও আলেয়া আক্তার অসুস্থ্য হয়ে পরলে তাদেরকে আজ দুপুরে আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আমরা বুঝতে পারছিনা এটা কোন রোগ চিকিৎসা নিতে না নিতেই দুজন মারা গেল। বাকিদের নিয়ে আতঙ্কে মধ্যে আছি আমরা।

এ বিষয়ে সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ মাহফুজার রহমান সরকার এ ঘটনার পর স্বাস্থ্য বিভাগের প্রতিনিধি দল ওই গ্রামে গিয়ে কারন জানতে পরিদর্শন করেছেন। কি কারনে তারা মারা গেল এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। আর যারা অসুস্থ্য হয়ে ভর্তি আছে তারা বর্তমানে ভাল আছেন বলে জানান তিনি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য