যুক্তরাষ্ট্রের নভেম্বরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নামতে ডেমোক্রেট দলের এগিয়ে থাকা প্রার্থী হিসেবে নিজের অবস্থান আরও দৃঢ় করেছেন বার্নি স্যান্ডার্স।

নেভাডা ককাসে তিনি জয় পেতে যাচ্ছেন এবং প্রাথমিক ফলাফলে বড় ধরনের জয়ের দিকে এগিয়ে যাচ্ছেন, এমন ধারণা পাওয়া যাচ্ছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

তবে ডেমোক্রেট দলের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী কে হতে যাচ্ছেন, তা নিশ্চিত হতে এখনও অনেকটা পথ পাড়ি দিতে হবে।

নেভাডার প্রাথমিক ফলাফলে যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন আগের তুলনায় ভালো করেছেন। এখানে তিনি দ্বিতীয় অবস্থানে আছেন। এর আগে আইওয়া ও নিউ হ্যাম্পাশায়ারে প্রাইমারিতে হতাশাজনক ফলাফল ছিল তার।

এই দুই অঙ্গরাজ্য থেকেই ডেমোক্রেট পার্টির দীর্ঘ চার মাসব্যাপী প্রেসিডেন্ট প্রার্থী মনোনয়ন প্রক্রিয়া (প্রাইমারি) শুরু হয়েছিল।

নেভাডায় ১১ শতাংশ ভোট গণনার পরই বিবিসির মার্কিন অংশীদার নেটওয়ার্ক সিবিএস ও অন্যান্য গণমাধ্যম স্যান্ডার্সের জয়ের আভাস দেয়। ভারমন্টের ‘বামপন্থি’ এই সিনেটর ৪৭ শতাংশ ভোট পেয়ে নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বাইডেন থেকে অনেকটা এগিয়ে ছিলেন। বাইডেন ২৪ শতাংশ ভোট পেয়েছিলেন।

এলিজাবেথ ওয়ারেন ও পিট বুটিগিগের মতো অন্যান্য প্রতিদ্বন্দ্বীরা আরও পেছনে পড়েছেন।

এখানে যে সব প্রার্থী ১৫ শতাংশের বেশি ভোট পাবেন শুধু তারাই ডেলিগেট পাবেন। জুলাইয়ে দলের সম্মেলনে এই ডেলিগেটরা তাদের নিজ নিজ ডেমোক্রেট প্রার্থীর পক্ষে সমর্থন দিবেন।

শনিবারের আগে স্যান্ডার্সের ঝুলিতে ২১ জন ডেলিগেট ছিল, দলের প্রার্থী হতে তার প্রয়োজন হবে ১৯৯০ জন ডেলিগেটের সমর্থন; সেই পথ অনেকটা দূর হলেও নেভাডায় জয় পেলে সেদিকে আরও একটু এগিয়ে যাবে স্যান্ডার্স।

শনিবার সন্ধ্যায় টেক্সাসে দেওয়া বিজয়ীর ভাষণে স্যান্ডার্স তার ‘বিভিন্ন প্রজন্মের, বহুজাতিক জোট’ সমর্থকদের প্রশংসা করেছেন আর ট্রাম্পকে আক্রমণ করে বলেছেন, “সবসময় মিথ্যা কথা বলা একজন প্রেসিডেন্টকে নিয়ে আমেরিকান জনগণ ক্লান্ত ও অসুস্থ হয়ে পড়েছে।”

ডেমোক্রেট দলের পরবর্তী প্রাইমারি আগামী শনিবার সাউথ ক্যারোলাইনায় হবে। মার্চের আগে যে চারটি অঙ্গরাজ্যে ভোট হচ্ছে তার মধ্যে এটিই সবচেয়ে বড়। তাই সবার চোখ এখন সাউথ ক্যারোলাইনার দিকে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য