যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্রেট পার্টির মনোনয়নপ্রত্যাশী বার্নি স্যান্ডার্সের প্রচারে রাশিয়া সহযোগিতার চেষ্টা করেছিল, এমন খবর ছড়ানোর পর ভারমন্টের সিনেটর মার্কিন নির্বাচনে ‘মস্কোর হস্তক্ষেপচেষ্টার’ তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন।

শুক্রবার ক্যালিফোর্নিয়ার বেকারসফিল্ডে এক সমাবেশে স্যান্ডার্স জানান, তার প্রচার শিবিরকে সহায়তায় রুশ চেষ্টার বিষয়ে গত মাসে যুক্তরাষ্ট্র প্রশাসনের কর্মকর্তারা তাকে সতর্ক করেছিলেন।

মস্কো কীভাবে ভূমিকা রাখতে চেয়েছিল, তা স্পষ্ট হওয়া যায়নি এবং এ ধরনের যে কোনো হস্তক্ষেপচেষ্টার বিরোধিতা করবেন বলেও মন্তব্য করেছেন ৭৮ বছর বয়সী এ ডেমোক্রেট।

সমাবেশে স্যান্ডার্স রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে ‘স্বৈরাচারী ঠগ’ বলে অভিহিত করেছেন বলে জানিয়েছে বিবিসি।

“আমাদের দেশে ভেদাভেদের বীজ বপনে তার (পুতিন) সরকার ইন্টারনেট প্রোপাগান্ডাকে ব্যবহার করেছিল,” বলেছেন এ স্বঘোষিত ‘সোশাল ডেমোক্রেট’।

বিবিসি বলছে, ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন দৌড়ে হিলারি ক্লিনটনের কাছে হেরে যাওয়া স্যান্ডার্সকে এখন ডেমোক্রেট প্রার্থীদের মধ্যে সবচেয়ে সম্ভাবনাময় হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।

আইওয়া ও নিউ হ্যাম্পশায়ারে সমর্থকদের কাছ থেকেও ভালোই সাড়া পেয়েছেন ৭৮ বছর বয়সী এ রাজনীতিক। নেভাদায় শনিবারের ককাসের আগে তার প্রচার শিবিরে রুশ হস্তক্ষেপচেষ্টার খবর এবং তা নিয়ে স্যান্ডার্সের নিন্দা এলো।

মার্কিন গণমাধ্যমগুলোর ধারণা, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহার করে মস্কো ভারমন্টের সিনেটরকে সহায়তার চেষ্টা করে থাকতে পারে।

তবে ফেইসবুক জানিয়েছে, তারা স্যান্ডার্সের প্রচার শিবিরে রুশ সহযোগিতার কোনো প্রমাণ পায়নি।

স্যান্ডার্সের প্রচার শিবিরে মস্কোর সাহায্যচেষ্টার বিষয়ে প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প ও অন্যান্য মার্কিন আইনপ্রণেতাদেরও জানানো হয়েছে বলে শুক্রবার জানিয়েছে ওয়াশিংটন পোস্ট।

যদিও যুক্তরাষ্ট্রের ঊর্ধ্বতন গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের ধারণা, নভেম্বরের নির্বাচনে ট্রাম্পকে জেতানোর লক্ষ্যেই রাশিয়া হস্তক্ষেপের চেষ্টা করতে পারে।

গত ১৩ ফেব্রুয়ারি প্রতিনিধি পরিষদের গোয়েন্দা বিষয়ক কমিটির রুদ্ধদ্বার বৈঠকে শীর্ষ এক গোয়েন্দা কর্মকর্তাও আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ‘ট্রাম্পই রাশিয়ার পছন্দের’ বলে জানিয়েছিলেন।

শুক্রবার নেভাদায় এক প্রচার সমাবেশে মার্কিন প্রেসিডেন্ট তাকে ঘিরে রুশ হস্তক্ষেপের বিষয়টিকে ‘ডেমোক্রেটদের গুজব ছড়ানোর চেষ্টা’ বলে অভিহিত করেছেন।

“ধোঁকাবাজ, কিছুই করতে না পারা ডেমোক্রেটরা এখন বলছে, ট্রাম্প যেন নির্বাচিত হয় পুতিন তা নিশ্চিত হতে চাইছেন। আগেও তারা এরকমটাই বলেছিল, আবার শুরু করেছে,” বলেছেন তিনি।

ট্রাম্প এর আগে ২০১৬-র নির্বাচনে তার প্রচার শিবিরের সঙ্গে রুশ আঁতাতের অভিযোগকে ‘উইচ হান্ট’ বলে অ্যাখ্যা দিয়েছিলেন।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে হস্তক্ষেপের অভিযোগ অস্বীকার করেছে রাশিয়া।

শুক্রবার ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ সাংবাদিকদের বলেন, এসব ‘মানসিক বিকারগ্রস্ত অভিযোগ’ যার সঙ্গে সত্যের কোনো ধরনের সম্পর্কই নেই।

মস্কোর এ অবস্থানকে যুক্তরাষ্ট্রের ভারপ্রাপ্ত জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার পরিচালক জোসেফ ম্যাগুইরের বক্তব্যের বিপরীত বলছে বিবিসি।

গত সপ্তাহে ম্যাগুইর প্রতিনিধি পরিষদের গোয়েন্দা বিষয়ক কমিটির ডেমোক্রেট সদস্যদের কাছে, রাশিয়া যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে হস্তক্ষেপের চেষ্টা চালাতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন।

ট্রাম্প ম্যাগুইরের ওই বক্তব্যের কড়া সমালোচনা করেছিলেন এবং পরে তাকে বরখাস্তও করেন।

ম্যাগুইরের স্থলাভিষিক্ত হিসেবে ট্রাম্প চলতি সপ্তাহে জার্মানিতে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত রিচার্ড গ্রেনেলের নামও ঘোষণা করেছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য