ঠাকুরগাঁও সদরে নাজমা আক্তার (২২) নামে এক গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহতের পরিবারের অভিযোগ, তার সাবেক স্বামী বাড়িতে ডেকে এনে তাকে হত্যা শেষে লাশ গাছে ঝুলিয়ে রেখেছে। মঙ্গলবার সকালে সাবেক স্বামী সাদ্দাম হোসেনের বাড়ির পার্শ্ববর্তী একটি গাছ থেকে নাজমার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত নাজমা বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার গোয়ালকারী গ্রামের নাজমুল হকের মেয়ে। নাজমার নয় মাস বয়সী এক কন্যা সন্তান রয়েছে।

নাজমার মামা সামসুলের অভিযোগ, বছর দু’এক আগে সদর উপজেলার রহিমানপুর খালপাড়া গ্রামের বাচ্চা বাবুর ছেলে সাদ্দামের সঙ্গে বিয়ে হয় নাজমার। তিন মাস আগে সাদ্দামের সঙ্গে শালিসে নাজমার তালাক হয়। বিয়ের সময় ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা যৌতুক নিলেও তালাকের সময় ৮০ হাজার টাকা নাজমার পরিবারকে ফেরত দেয় সাদ্দাম।

মেয়েকে দেখার কথা বলে সাদ্দাম নাজমাকে ১৫ ফেব্রুয়ারি বাড়িতে নিয়ে আসেন। এরপর নাজমার পরিবারের কাছে সেই ৮০ হাজার টাকার জন্য চাপ দেয়। আমরা টাকা দিতে রাজি না হলে সোমবার রাতে নাজমাকে হত্যা করে গাছে ঝুলিয়ে রাখে সাদ্দামের পরিবার। খবর পাওয়ার পরে সাদ্দামের বাবা বাবুকে আটক করে পুলিশে দিয়েছি। এ ঘটনার সঠিক তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের বিচার চাই।

তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই শাকিলা বলেন, নাজমার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। রিপোর্ট পাওয়া গেলে প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে। সেইসঙ্গে তদন্ত চলছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য