ইরাকের রাজধানী বাগদাদে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন জোটের সামরিক ঘাঁটিতে বেশ কয়েকটি বিস্ফোরণ হয়েছে।

রোববার ভোররাতের এ বিস্ফোরণগুলো রকেট হামলার কারণে ঘটে থাকতে পারে, বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনীর কর্মকর্তারা।

হামলায় কেউ হতাহত বা কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে কিনা তারা তাৎক্ষণিকভাবে তা বলতে পারেননি বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

বাগদাদের গ্রিন জোনের ভিতরে এই ঘাঁটির পাশেই যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস। প্রায়ই এই দূতাবাসের কাছে বা কখনো কখনো দূতাবাসটিতেও রকেট হামলা হয়। কোনো পক্ষ এসব হামলার দায় স্বীকার না করলেও যুক্তরাষ্ট্র ইরান সমর্থিত ইরাকি মিলিশিয়া বাহিনীগুলোকে এসব হামলার জন্য দায়ী করে আসছে।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে বাগদাদে যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের কাছে বেশ কয়েকটি রকেট আঘাত হেনেছে বলে খবর প্রকাশ হয়েছে। হামলার সময় সতর্কতামূলক সাইরেনও বাজানো হয় বলে জানা গেছে।

ডিসেম্বরের শেষ দিকে ইরাকের উত্তরাঞ্চলীয় সামরিক ঘাঁটি কে-ওয়ানে রকেট হামলায় যুক্তরাষ্ট্রের এক সৈন্য নিহত হওয়ার পর তার জের অনেকদূর গড়ায়।

সৈন্য হত্যার প্রতিশোধ নিতে ইরাকের পশ্চিমাঞ্চলে দেশটির রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা বাহিনীর অন্তর্ভূক্ত হাশেদ আল শাবি মিলিশিয়ার বাহিনীর একটি উপদলের ওপর বিমান হামলা চালায় যুক্তরাষ্ট্র। এতে ৩০ জনেরও বেশি মিলিশিয়া নিহত হয়।

এর কয়েকদিনের মধ্যেই বাগদাদে যুক্তরাষ্ট্রের ড্রোন হামলায় ইরানি কুদস বাহিনীর প্রধান জেনারেল কাসেম সোলেইমানি ও তার ডান হাত বলে পরিচিত হাশেদের উপপ্রধান আাবু মাহদি আল মুহান্দিস নিহত হন।

তখনই এই দুই কমান্ডারের মৃত্যুর প্রতিশোধ নেওয়ার প্রতিজ্ঞা জানিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাদের তাৎক্ষণিভাবে ইরাক ছাড়ার দাবি জানিয়েছিল হাশেদের উপদলগুলো।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য