দিনাজপুর সংবাদাতাঃ অবশেষে আত্রাই নদীর চরের কৃষি জমিতে বালু ফেলা বন্ধ করে দিয়েছেন, বীরগঞ্জ উপজেলার নির্বাহী অফিসার মোঃ ইয়ামিন হোসেন ।

শতগ্রাম ইউনিয়নের কাশিমনগর গ্রামের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া আত্রাই নদী খননের পর সেই বালু নদীর পাড়ে চরের ফসলি জমির উপর ফেলার প্রতিবাদে নদী এলাকায় মানববন্ধন করেন ভূমিহীন কৃষকেরা।

ওইদিন, বিভিন্ন পত্রিকায় সংবাদটি প্রকাশিত হলে নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ইয়ামিন হোসেন সরেজমিন নদী এলাকা পরির্দশনে আসেন এবং কৃষকদের ক্ষতির পরিমাণ বুঝতে পেরে নদী খননের বালু চরের কৃষি জমিতে ফেলা বন্ধ করে পাশের ফাঁকা জায়গায় ফেলার নির্দেশ দেন তিনি।

নদী এলাকার চরে অনেক জমিতে ধান, ভুট্টা, মিষ্টি কুমড়াসহ বিভিন্ন ফসলের চাষ করে থাকেন এই এলাকার ভূমিহীন কৃষকেরা।

সরকার সারাদেশে নদী খননের উদ্যোগ গ্রহণ করার পর বীরগঞ্জ উপজেলার শতগ্রাম ইউনিয়নের কাশিমনগর গ্রামে আত্রাই নদী খননের কাজ শুরু হয়। চরের ফসলি জমিতে বালু ফেলা বন্ধ করার বিষয়ে কৃষক ফজর আলী বলেন, ‘ইউএনও কাছে আমাদের আবেদন ছিল যাতে ফসল ঘরে না তোলা পর্যন্ত আমাদের ফসলের উপর নদী খননের বালু ফেলা না হয়।

স্যার আমাদের কথা শুনেছেন। এজন্য নির্বাহী অফিসারের প্রতি সাধারণ কৃষকরা অনেক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি সেই সাথে যেসকল সাংবাদিকগণ আমাদের পাশে ছিলেন তাদেরকেও ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য