আরেকটা দিন দেখি ব্যথা কমে কিনা— শরীরের বিভিন্ন ধরনের ব্যথা নিয়ে এমন অবহেলা করলে ঘটে যেতে পারে দুর্ঘটনা। সাধারণ অথচ মারাত্বক জটিলতার ইঙ্গিত হতে পারে এমনই কিছু ব্যথা সম্পর্কে জানিয়েছে স্বাস্থ্যবিষয়ক এক ওয়েবসাইট।

বুক ব্যথা: হার্ট আটাক বা অন্যান্য হৃদরোগের লক্ষণ হতে পারে বুক ব্যথা। এছাড়াও হজম কিংবা গ্যাসের সমস্যা, মানসিক চাপ, সর্দিকাশি, জ্বর ইত্যদির লক্ষণও হতে পারে এটি। শারীরিক এই সমস্যাগুলো সাধারণ মনে হলেও বুকের ব্যথা কখনও অবহেলা করা উচিত নয়। খেয়াল রাখতে হবে, বুক ব্যথার সঙ্গে যদি গলা, চোয়াল, বুকের উপরের অংশে ও বাম কাঁধে ব্যথা অনুভব করেন তবে অবশ্যই একজন হৃদরোহ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে হবে।

মাথাব্যথা: কারণ বলে শেষ করা সম্ভব নয়। তবে নিয়মিত মাথাব্যথার কারণ হতে পারে মস্তিষ্কের টিউমার বা রক্তক্ষরণের উপসর্গ। যদি প্রায়ই আকস্মিকভাবে তীব্র মাথাব্যথা অনুভব করেন তবে দ্রুত ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।

পিঠের নিচের অংশে ব্যথা: মানসিক চাপ, অতিরিক্ত শারীরিক পরিশ্রম অথবা তলপেটের সমস্যার কারণে পিঠের নিচের অংশে ব্যথা হতে পারে। তবে ধমনি

ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া কিংবা রক্তনালীতে সমস্যার কারণেও পিঠের নিচের অংশে ব্যথা হতে পারে। ধমনি ও রক্তনালীর এই জটিলতাগুলোর পরিণতি হতে পারে হার্ট অ্যাটাকও। যাদের উচ্চ রক্তচাপ, ধূমপায়ি, ডায়বেটিস এবং রক্ত সঞ্চালনজনিত জটিলতা রয়েছে তাদের এই পিঠ ব্যথা হালকা ভাবে নেওয়া উচিত হবেনা।

তলপেটে ব্যথা: তলপেটে মারাত্বক ব্যথা হতে পারে অ্যাপেনডিক্সের লক্ষণ। পেটে ব্যথা হলেই ভয় পাওয়ার কোনো কারণ নেই। তবে সমস্যা যদি নিয়মিত হয় তা পাকস্থলীতে আলসার, অন্ত্র বন্ধ হয়ে যাওয়া বা অগ্ন্যাশয়ের সমস্যার ইঙ্গিত হতে পারে।

পায়ে জ্বলুনি: সামান্য মশার কামড়েই এই অনুভূতি হওয়া সম্ভব। তবে আমেরিকান ডায়বেটিস অ্যাসোসিয়েশনের মতে, এটি পেরিফেরাল নিউরোপ্যাথি’র প্রাথমিক উপসর্গ হতে পারে। জ্বলুনি অনুভূতি যদি অনেক বেশি নিয়মিত হয় তবে এর সঙ্গে স্নায়ুগত সমস্যার সম্পর্ক থাকতে পারে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য