অস্ট্রেলিয়ার সিডনি শহরে ৩০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে ভারি বৃষ্টিপাতে বন্যা দেখা দিয়েছে, এতে সড়ক, রেল ও ফেরি যোগাযোগ বিঘ্নিত হয়ে ভ্রমণ বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়েছে এবং কয়েক হাজার লোক ঘরবাড়ি ছাড়তে বাধ্য হচ্ছেন।

গত চারদিনে ৩৯১ দশমিক ৬ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে, প্রবল এ বৃষ্টিপাতের কারণে মারাত্মক হড়কা বানের ঝুঁকি তৈরি হতে পারে বলে সতর্ক করেছে অস্ট্রেলিয়ার রাষ্ট্রীয় আবহাওয়া সংস্থা।

দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার মধ্যে প্রায় এক লাখ বাড়ি বিদ্যুৎবিহীন হয়ে পড়েছে, জানিয়েছে বিবিসি।

ভারি বৃষ্টিপাতের কারণে সোমবার সকালে সিডনির রেল ও ফেরি চলাচল বিঘ্নিত হয়েছে।সিডনির প্রধান স্টেশনের কয়েকটি প্ল্যাটফর্ম পানিতে তলিয়ে গেছে। শহরটির বহু স্কুল বন্ধ রাখা হয়েছে।

এই বিশৃঙ্খলা এড়াতে সোমবার সিডনিবাসীদের কাজে না গিয়ে বাড়িতে থাকার পরামর্শ দিয়েছে জরুরি সেবা বিভাগগুলো। রাজ্যের দুর্যোগমন্ত্রী ডেভিড এলিয়ট সতর্কবার্তাগুলো গুরুত্বের সঙ্গে নেওয়ার জন্য সিডনিবাসীদের অনুরোধ করেছেন।

শহরটির নিম্নাঞ্চলে বসবাসরত কয়েক হাজার লোককে তাদের ঘরবাড়ি ছাড়তে অথবা ছাড়ার প্রস্তুতি নিতে বলা হয়েছে। রোরবার রাতে সিডনির উত্তরাংশে নারাবিন ল্যাগুনের আশপাশের নিচু এলাকায় বসবাসকারী লোকজনকে সড়ক যোগাযোগের অনুপযুক্ত হয়ে পড়ার আগেই এলাকা ছাড়তে বলা হয়।

রোববার সিডনি থেকে অন্তত ২০০ জনকে উদ্ধার করে জরুরি বিভাগের কর্মীরা। রোববার বিকালে নগরীর কেন্দ্রস্থলে একটি গাড়িতে গাছ পড়ে চার আরোহী আহত হয়। এছাড়া আরও বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে বলে জরুরি বিভাগ জানিয়েছে।

সোমবার সকালে জরুরি বিভাগ একটি সেতু থেকে গাড়ির সঙ্গে ভেসে গেছে বলে ধারণা করা নিখোঁজ এক ব্যক্তির খোঁজে অনুসন্ধান চালিয়ে যাচ্ছিল।

সোমবার সিডনির কেন্দ্রস্থলে বৃষ্টি থামলেও সপ্তাহজুড়ে আরও বৃষ্টিপাত হতে পারে বলে আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে।

বৃষ্টি এসব দুর্যোগের কারণ হলেও নিউ সাউথ ওয়েলসজুড়ে জ্বলতে থাকা বেশ কয়েকটি দাবানল এর কারণে তেজ হারিয়েছে বা বন্ধ হয়ে গেছে। এগুলোর মধ্যে কারোয়ান দাবানল অন্যতম। শোলহ্যাভেন শহরের আশপাশে ৭৪ দিন ধরে জ্বলতে থাকা এই দাবানলে প্রায় পাঁচ লাখ হেক্টর এলাকা পুড়ে গেছে ও ৩১২টি বাড়ি ধ্বংস হয়েছে।

দাবানলে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাগুলোতেই বন্যার ঝুঁকি বেশি এবং দ্রুত এগোতে থাকা বানের পানিতে প্রচুর আবর্জনাও থাকতে পারে বলে সতর্ক করেছে আবহাওয়া ব্যুরো।

নিউ সাউথ ওয়েলসে এখনও ৩১টি দাবানল সক্রিয় থাকলেও কোনোটিকেই এখন আশু হুমকি হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে না।

ভারি বৃষ্টিপাত কয়েক বছর ধরে খরায় ভোগা অঞ্চলটির পানি সরবরাহ ব্যবস্থাকেও সচল করে তুলেছে। সিডনি শহরে পানি সরবরাহের মূল উৎস ওয়ারাগাম্বা বাঁধ পানিতে ৭০ শতাংশ পর্যন্ত পূর্ণ হয়ে উঠেছে বলে জানিয়েছে ওয়াটারএনএসডব্লিউ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য