সংবাদ সম্মেলনঃ দিনাজপুরে আদালতের নিষেধাজ্ঞা উপক্ষো করে আমার কয়েক কোটি টাকা মূল্যের সম্পত্তি দখল করে রেখেছে অবৈধ দখলদার। আদালত পাঁচবার আমার পক্ষে রায় ঘোষণা করলেও অবৈধ দখলদার আমার সম্পত্তির দখল দিচ্ছে না। বর্তমানে আমি আমার পরিবার পরিজন নিয়ে জীবনের নিরাপত্তহীনতা ভুগছি।

শনিবার (৮ ফেব্রুয়ারী) দিনাজপুর প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন দিনাজপুর শহরের দক্ষিণ বালুবাড়ী এলাকার সাহাজ উদ্দীনের ছেলে দ্বীন ইসলাম।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরো বলেন, এ ব্যাপারে গত ২ ফেব্রুয়ারী প্রতিপক্ষ পরেশ, হবেল, তালুয়া, দিলীপ, শিরু, অলোক, জগদীশসহ ১৯ জনের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী, জেলা প্রশাসকসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। তিনি বলেন, প্রতিপক্ষ পরেশ গংরা ১৩/৭০ নং পেটি মামলা দায়ের করে পরাজিত হয়েছেন।

উক্ত মামলায় পরাজিত হওয়ার পরে সদর দিনাজপুর জেলার মুনসেফ আদালতে বিবাদী পরেশ গংদের বিরুদ্ধে চিরস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা চেয়ে আবেদন করলে বিজ্ঞ আদালত বিবাদীদের উপরে চিরস্থায়ী নিষাধাজ্ঞার আদেশ প্রদান করেন। (যার মামলা নং-২৮৭/৬৯)। মহামান্য হাই কোর্ট মামলা নংÑ৮৮/৭৩, ৪০৯ ও ১৯৭৪ হাই কোর্ট সুপ্রীম কোর্ট বিভাগে দায়ের করা মামলায় দ্বীন ইসলামের পক্ষে বিনিময় কেস নংÑ ৪০৮/০৮ এর ১৯৭০-৭১ নং বিনিময় মোকদ্দমা সম্পত্তি হতে দরখাস্তকারিকে উচ্ছেদ করা হতে বিরত থাকার আদেশ দেন বিজ্ঞ আদালত। আদেশের স্বপক্ষে সদর মুনসেফ আদালতে ১১৬/৮০ মামলা দায়ের করেন দ্বীন ইসলাম। এই মোকদ্দমাতেও দ্বীন ইসলামের পক্ষে আদেশ দেন বিজ্ঞ বিচারক।

তিনি বলেন, বিবাদীরা দেবত্তোর সম্পত্তি দাবি করে জেলা জজ আদালতে ৫৪/৮৫ নং একটি মামলা দায়ের করলে বিজ্ঞ বিচারক দেবত্তোর সম্পত্তির স্বপক্ষে ১৫ দিনের মধ্যে প্রয়োজনীয় কগজপত্র আদালতে দাখিল করতে বলেন। কিন্তু পরেশ গংরা দেবত্তোর সম্পত্তির স্বপক্ষে কোন দলিলাদি আদালতে দাখিল করতে না পারায় ১৯/০২/৮৯ ইং তারিখে বিজ্ঞ জেলা জজ আদালত দিনাজপুর মামলাটি খারিজ করে দেন।

সংবাদ সম্মেলনে দ্বীন ইসলাম বলেন, বর্তমানে নালীশি সম্পত্তিতে উচ্চ আদালতের আদেশ বহাল থাকার পরও পরেশগংরা অবৈধভাবে উক্ত সম্পত্তি জবর দখল করার পায়তার করছে। দিনাজপুর জেলার কোতয়ালী থানার প্রাণনাথপুর মৌজার খতিয়ান নং- ১২৪৩ ও ১১৮৫, তাগ নং- ২৪৪৭,২৪৪৬,২৭০৬,২৭০৭, মোট ০.৮৪৫০ একর সম্পত্তি অবৈধভাবে পরেশগংরা দেবত্তোরের নাম ভাঙ্গিয়ে আত্মসাৎ করার মানসে আদালতের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ওই সম্পত্তিতে বহুতল ভবণ নির্মাণের চেষ্টা করছে। তারা ওই সম্পত্তি দখল রাখতে দেবত্তোরের নাম ভাঙ্গিয়ে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করার চেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, বর্তমাণে আমার ছেলে মেয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে আর্থিক সংকটে আছি। মামলার খরচ চালাতে পারছি না। পর্দার আড়াল থেকে থেকে এক ব্যক্তি কলকাটি নাড়ছে, যার নাম আমি মুখে বলতে পারবো না। তার নাম বললে আমাতে হত্যা করে ফেলবে। বর্তমানে আমি জীবনের নিরাপত্তহীনতা ভুগছি।

তাই এ ব্যাপারে তিনি সাংবাদিকদের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী, জেলা প্রশাসকসহ সংশিষ্ট দপ্তরের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য