দিনাজপুর সংবাদাতাঃ বীরগঞ্জের সড়কে সড়কে দাপিয়ে বেড়াচ্ছ অবৈধ ট্রাক্টও, অতিষ্ঠ বীরগঞ্জ পৌরবাসী। বেড়েছে জনদুর্ভোগ দেখার কেউ নেই। বালু,মাটি পরিবহনে ব্যবহৃত লাইসেন্স ও নম্বর বিহীন অবৈধ ট্রাক্টরের উপর নিষেধজ্ঞা থাকলেও তা মানছেন না কেউ।

এসব ট্রাক্টরের বিকট শব্দে অতিষ্ঠ পৌরবাসী। ট্রাক্টরের কারণে অনেকে রাতে ঠিকমতো ঘুমাতে পারচ্ছেন না। দিনের বেলায় পেঁক-কাঁদায় গড়াগড়ি, একদিন একসেট পোশাক পড়লে পরদিন আর সেই পোশাক পরিধানের পরিবেশ থাকে না। শীত নিবারণের জুতা পরিধানের কোনো সুযোগ নেই।

এইসব বালু বাহি অবৈধ ট্রাক্টর পরিবহনে নিষেধ থাকলেও এই নিষেধজ্ঞাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দোলাচ্ছন চালক ও মালিকরা অবাদে পরিবহন করছেন বালু। যে ট্রাক্টর দিয়ে ক্ষেত-খামারে হালচাষ করার কথা থাকলেও সেগুলো চালানো হচ্ছে মহাসড়কসহ বিভিন্ন রাস্তায় পরিবহনের কাজে। ভেজা বালু পরিবহন করায় পানি জমে কাঁদায় পরিণত হচ্ছে রাস্তা।

রাস্তাগুলো ভেঙে চুরমার হয়ে অনেক আগেই। বিশেষ করে মাকাড়াই রাস্তা, স্লুইসগেট রোড, বীরগঞ্জ – পীরগঞ্জ রোড ও পৌরশহরের আনাচেকানাচে রাস্তাতে পায়ে হেঁটে চলার কোনো পরিবেশ নেই। প্রতিদিন পোশাক বদল করতে হয় শিক্ষার্থীদের। ট্রাক্টরগুলো মহাসড়কে দাপিয়ে বেড়ার কারণে শিক্ষার্থীরা শিক্ষার্থী তাদের স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছে।

অন্যদিকে অতিরিক্ত ধুলার কারণে হোটেল, রেস্তোরাগুলো তাদের খাদ্য সামগ্রী নিয়ে বিপাকে পড়েছে। অনেকে প্রাণ হাড়িয়েছে এই বালুর ট্রাক্টরের নিচে চাপাপড়ে। এ নিয়ে বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার বলেন, মোবাইল কোর্টে পরিচালনার মাধ্যমে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

স্থানীয় অভিজ্ঞ মহল মনে করছেন,এর একটা স্থানীয় ব্যবস্থা হওয়া দরকার, যেহেতু এগুলো অবৈধ পুলিশ প্রশাসনেরও যতেষ্ট আইনানুগ ভূমিকা থাকা দরকার তারা নিরব কোন? পুলিশ প্রশাসন, উপজেলা প্রশাসন ও জেলা প্রশাসনের জোড়ালো ভূমিকা নেয়ার প্রতিনিয়ত দাবি জানিয়ে আসছেন ভুক্তভোগীরা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য