কুড়িগ্রামের উলিপুরে পাতিলাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাঠদান চলছে ধুকে ধুকে। ওই বিদ্যালয়ের বেশিরভাগ সময় শিক্ষক সংকট থাকায় পাঠদান লাঠে উঠার উপক্রম।

এরইমধ্যে একজন কে বদলি ও দুইজন প্রশিক্ষণে থাকায় শিক্ষক সংকটে রয়েছে বিদ্যালয়টি। ফলে বিদ্যালয়টির প্রায় ২ শতাধিক শিক্ষার্থীর পাঠদান চলছে একজন শিক্ষক দিয়ে।

জানা গেছে, উপজেলার দলদলিয়া ইউনিয়নের পাতিলাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ১৯৭০ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। বিদ্যালয়টিতে ৫ জন শিক্ষকের পদ থাকলেও প্রধান শিক্ষকের পদ দীর্ঘদিন ধরে শুন্য। বাকি ৪জন শিক্ষকের মধ্যে একজন আন্তঃ বদলি নিয়ে কুড়িগ্রাম সদরের সিতাইঝাঁড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যোগদান করেছেন।

সম্প্রতি ফরিদুল ইসলাম ও সামিউল ইসলাম নামের দুইসহকারী শিক্ষক প্রশিক্ষণ (ডিপিইডি) করছেন। বিদ্যালয়টিতে শিশু শ্রেণি থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার্থীর সংখ্যা ২১৮ জন। ফলে একজন শিক্ষক দিয়ে এতগুলো শিক্ষার্থীদের পাঠদান চালাতে হিমশিম খাচ্ছেন।

সম্প্রতি ওই বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক বিলকিস বেগম তৃতীয় শ্রেণিতে পাঠদান করাচ্ছেন। এ সময় অন্য ক্লাসের শিক্ষার্থীরা এলোমেলো ঘোরাঘুরি করছেন।

সেখানে উপস্থিত কয়েকজন অভিভাবক জানান, বর্তমানে এই স্কুলে নিয়মিত ক্লাস না হওয়ায় ছেলে-মেয়েরা আর স্কুল আসতে চায় না। এমন পরিস্থিতিতে আমরা বাচ্চাদের অন্য স্কুলে পাঠাব কি না ভাবছি।

পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী মারুফ হাসান,জোবায়ের হোসেন, মিনহাজুল ইসলাম, মাহমুদুল হাসানসহ অনেকে জানান, একজন আপা আমাদের সব ক্লাস এক সাথে নেয়। ঠিকমতো ক্লাস হয় না। আমরা স্কুল আসি আর বাড়ি যাই।

বিদ্যালয়ে কর্মরত শিক্ষক বিলকিস বেগম বলেন, এতগুলো ক্লাস একায় নেয়া সম্ভব হয় না। কোনো একটি ক্লাসে ঢুকলে বাকি শিক্ষার্থীরা হইহুল্লোর শুরু করে। আবার কখনও অফিসের কাজে গেলে স্কুল বন্ধ রাখতে হয়।

উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক শাহ্ মোবাইল ফোনে বলেন, ওই বিদ্যালয়ে আজ শনিবার (০১ ফ্রেবুয়ারী) প্রধান শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। দুইজন প্রশিক্ষণে আছেন। যতদ্রুত সম্ভব বাকি একজন শিক্ষককেও নিয়োগ দেওয়া হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য