মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প মিয়ানমার ও নাইজেরিয়াসহ নতুন ছয়টি দেশের ওপর বিধিনিষেধ দিয়ে বিস্তৃত ভিসা নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন।

শুক্রবার এক আদেশে তিনি এ নতুন নিষেধাজ্ঞা দেন বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

নতুন বিধিনিষেধের ফলে ইরিত্রিয়া, নাইজেরিয়া, মিয়ানমার ও কিরগিজস্তানের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্রে স্থায়ীভাবে বসবাসের সুযোগ কমে আসবে। সুদান ও তানজানিয়ার নাগরিকদের জন্য বন্ধ হবে ‘ডাইভারসিটি ভিসা’।

তবে দেশ ছয়টির নাগরিকদের ভ্রমণ ভিসা, শিক্ষার্থী ও ব্যবসা সংশ্লিষ্ট ভিসা আগের মতোই চালু থাকবে।

নিরাপত্তা ও তথ্য-ভাগাভাগি বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের বেধে দেওয়া মান অর্জনে ব্যর্থ হওয়ায় নতুন এ ছয় দেশকে নিষেধাজ্ঞার আওতায় আনা হয়েছে বলে মার্কিন হোমল্যান্ড সিকিউরিটির ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি শ্যাড ওলফ জানিয়েছেন।

ইরান, উত্তর কোরিয়া, লিবিয়া, সোমালিয়া, সিরিয়া, ইয়েমেন ও ভেনেজুয়েলার ওপর আগের নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকবে বলেও শুক্রবারের আদেশে বলা হয়েছে।

ট্রাম্প প্রশাসনের নতুন এ নীতি ২১ ফেব্রুয়ারি থেকে কার্যকর হবে।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে যুক্তরাষ্ট্র নাইজেরিয়া থেকে তুলনামূলক বেশি অভিবাসী নেওয়ায় ট্রাম্পের নতুন ঘোষণায় আফ্রিকার এ দেশটিই সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলে বিশ্লেষকরা ধারণা করছেন।

নিষেধাজ্ঞায় অন্তর্ভুক্ত নতুন দেশগুলোর মধ্যে চারটিই আফ্রিকার; তিনটি মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ।

মূলত পাসপোর্ট সংক্রান্ত প্রযুক্তির আধুনিকায়ন না ঘটানো এবং যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সন্দেহভাজন জঙ্গি ও অপরাধীদের বিষয়ে তথ্য ভাগাভাগি না করার কারণেই এ দেশগুলোকে ভিসা নিষেধাজ্ঞায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে বলে ওলফ জানিয়েছেন।

তালিকায় বেলারুশের নামও অন্তর্ভুক্ত করার কথা বিবেচনা করা হয়েছিল, সাম্প্রতিক মাসগুলোতে তারা বেশ কিছু ইতিবাচক পদক্ষেপ নেওয়ায় তাদের নাম বাদ পড়ে, বলেছেন মার্কিন হোমল্যান্ড সিকিউরিটির এ ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য