মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ফিলিস্তিন বিরোধী মার্কিন-ইহুদিবাদী পরিকল্পনা ‘ডিল অব দ্যা সেঞ্চুরি’ ঘোষণা করার পর এর মোকাবেলায় ইরান কূটনৈতিক তৎপরতা কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে।

ট্রাম্পের এ ঘোষণার পরপরই ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আব্বাস মুসাভি এবং সংসদ স্পিকার আলী লারিজানি ষড়যন্ত্রমূলক পরিকল্পনা ‘ডিল অব দ্যা সেঞ্চুরি’ মোকাবেলায় সব মুসলিম দেশকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন। মুসাভি এক টুইটারবার্তায় বলেছেন, ট্রাম্পের কথিত শান্তিচুক্তির বিরুদ্ধে আঞ্চলিক যেসব দেশ লড়াই করতে চায় তাদেরকে সহযোগিতা দিতে প্রস্তুত রয়েছে তেহরান। তিনি বলেন, এ পরিকল্পনার পেছনে গভীর ষড়যন্ত্র রয়েছে।

অন্যদিকে ইরানের সংসদ স্পিকার আলী লারিজানি মুসলিম দেশগুলোর সংসদ স্পিকারদের কাছে লেখা চিঠিতে এবং তাদের বেশ ক’জনের সঙ্গে সরাসরি টেলিফোন সাক্ষাতে মার্কিন ওই ষড়যন্ত্র মোকাবেলায় সহযোগিতার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, সব মুসলিম দেশের উচিৎ গণভোট আয়োজন ও কূটনৈতিক উপায়ে ফিলিস্তিন সংকট সমাধানে সোচ্চার হওয়া যাতে তাদের অধিকার রক্ষা করা যায়।

ফিলিস্তিন ও বায়তুল মোকাদ্দাস হচ্ছে মুসলিম বিশ্বের প্রধান এক নম্বর ও প্রধান সমস্যা। বিভিন্ন ইস্যুতে মুসলিম দেশগুলোর মধ্যে রাজনৈতিক মতবিরোধ সত্বেও ট্রাম্পের ঘোষিত ‘ডিল অব দ্যা সেঞ্চুরি’ মোকাবেলায় ঐক্যবদ্ধ হওয়া জরুরি। কারণ এ পরিকল্পনায় মুসলমানদের প্রধান কেবলাকে টার্গেট করা হয়েছে যা কোনো মুসলমানের পক্ষেই মেনে নেয়া সম্ভব নয়।

বায়তুল মোকাদ্দাসকে পুরোপুরি ইহুদিকরণ এবং এ শহরকে ইসরাইলের রাজধানী করার কথা বলা হয়েছে ইসরাইল-মার্কিন ওই কথিত শান্তি প্রস্তাবে। এ অবস্থায় মুসলিম দেশগুলোর মধ্যে ঐক্যের প্রয়োজনীয়তা দেখা দিয়েছে। ট্রাম্পের ঘোষিত ‘ডিল অব দ্যা সেঞ্চুরি’ পরিকল্পনায় ফিলিস্তিন ভূখণ্ডকে পুরোপুরি গ্রাস করার বিষয়টি পাকাপোক্ত করা হয়েছে যা কিনা জাতিসংঘের আইনসহ সমস্ত ইশতেহারের পরিপন্থী। নেতানিয়াহু ও ট্রাম্পের ষড়যন্ত্রমূলক এ পরিকল্পনায় ভূখণ্ডের ওপর ফিলিস্তিনিদের মালিকানাকে অস্বীকার করা হয়েছে। মূলত তারা শান্তির উদ্দেশ্যে পরিকল্পনা করেনি এবং তাদের অসৎ রাজনৈতিক উদ্দেশ্য রয়েছে। কারণ ট্রাম্প ও নেতানিয়াহু দু’জনই অভ্যন্তরীণ রাজনীতিকে চরম বেকায়দায় অবস্থায় রয়েছে।

ব্লুমবার্গে এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘ডিল অব দ্যা সেঞ্চুরি’ আসলে ট্রাম্প ও নেতানিয়াহুর নিজস্ব রাজনৈতিক স্বার্থে প্রণয়ন করা হয়েছে। একদিকে ট্রাম্প ইম্পিচমেন্টের সম্মুখীন অন্যদিকে নেতানিয়াহুর সামনে নির্বাচন রয়েছে এবং তার বিরুদ্ধে বেশ কিছু অভিযোগ জমা হয়ে আছে।

পর্যবেক্ষকরা বলছেন, ট্রাম্পের ঘোষিত ‘ডিল অব দ্যা সেঞ্চুরি’ পরিকল্পনার ধরন থেকে বোঝা যায় প্রলোভনের মাধ্যমে এর প্রতি ফিলিস্তিনিদের সমর্থন আদায়েরও চেষ্টা করছেন ট্রাম্প ও নেতানিয়াহু। কিন্তু এরই মধ্যে ফিলিস্তিনিরা এ প্রস্তাবের বিরোধিতা করেছে।

সুত্রঃ পার্সটুডে

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য