সংবাদ সম্মেলনঃ দিনাজপুরে রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক সদরের লিলির মোড়স্থ শাখায় কর্মরত পিয়ন পদে শমসের আলীর মৃত্যুর পর তার পেনশন / গ্রাইচুইটি দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন তার স্ত্রী ও ছেলে মেয়েরা ।

আজ সোমবার দুপুরে মৃত শমসের আলীর স্ত্রী মর্জিনা বেগম , তার ছেলে সাজ্জাদ হোসেন ও মেয়ে শামিমা পারভীন এই সংবাদ সম্মেলন করেন ।

লিখিত বক্তব্যে মৃত শমসের আলীর স্ত্রী মর্জিনা বেগম বলেন , আমার স্বামী শমসের আলী গত ৩১ জানুয়ারী ২০০৯ ইং তারিখে মৃত্যু বরন করেন । তিনি জীবনদশায় ২১ ই এপ্রিল ১৯৮৪ তারিখ হতে রা,কা,ব-এ পিয়ন পদে নিয়োগ প্রাপ্ত হইয়া রা,কা,ব লিলির মোড়স্থ বাহাদুর বাজার শাখায় ৩১ ই জানুয়ারী ২০০৯ তারিখ পর্যন্ত সুনামের সাথে চাকুরী করিয়াছেন । চাকুরী চলাকালিন সময়ে তিনি হঠাৎ মারা যায় । এতে করে আমি ও আমার তিন সন্তান পরিবারেরর একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যাক্তির মৃত্যুতে চরম ভাবে বিপদে পড়ে য়াই ।

তিনি আরোও বলেন , আমার স্বামী মারা যাওয়ার পর আমার স্বামীর ওয়ারীশগন ১৮ই মে ২০১০ই তারিখে স্মারক নং-জোন দিন/উঃ/প্রশা-১(২২)/২০০৯/১০/৪৩৪২ জোনাল কার্যালয় , দিনাজপুর জোন ( উত্তর) এর জোনাল ব্যবস্থাপক ,এস,এম শামসুল আলম কর্তৃক স্বাক্ষরকৃত চিঠির প্রেক্ষিতে নগদায়ন ও পেনশন/ গ্রাচুইটি নিমিত্ত সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট আবেদন ও যোগাযোগ করেও সমুদয় টাকা প্রাপ্ত হয় নাই।

এরপরও আমার স্বামীর পেনশন টাকা উত্তোলনের জন্য জোনাল ব্যবস্থাপকের নিকট যোগাযোগ করলে তিনি আমার নিকট থেকে আমার স্বামীর শমসের আলীর চাকুরীর নিয়োগপত্রসহ যাবতীয় কাগজপত্রাদি জমা দিয়ে শমসের আলীর পেনশনের টাকা উত্তোলন করিয়া লইয়া গিয়াছেন বলিয়া আমাকে পেনশনের টাকা না দিয়া ব্যাংক হইতে বিতাড়িত করিয়াছেন ।

এরপর আমি কোন উপায় না পেয়ে জোনাল ব্যবস্থাপক সুইহারী দিনাজপুর বদিউজ্জামান চৌধুরী , ব্যবস্থাপক রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক , লিলির মোড় দিনাজপুর শাখা হবিবর রহমান এবং মুখ্য কর্মকর্তা রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক দক্ষিন জোন ফুলবাড়ী বাসষ্ট্যান্ড , ফুলবাড়ী , দিনাজপুর মোবারেফ আহম্মেদ বরাবারে উকিল নোটিশ নোটিশ প্রেরন করি ।

উকিল নোটিশ পাওয়ার রাকাব দিনাজপুর লিলির মোড়স্থ শাখা ম্যানাজার হবিবর রহমান রাগান্বিত হইয়া গালমন্দ করতঃ পেনশন/ গ্রাচুইটির কোন টাকাই প্রদান করা হবে না এবং পেসশনের টাকা প্রদানের অস্বাীকার করে ।

উল্লেখ কয়েক ব্যাক্তি আমার স্বামীর পেনশন / গ্রাচুইটির টাকা আত্ম সাৎ করিবার টালবাহনা করতেছে । এ বিষয়টি নিয়ে আমি দিনাজপুর সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিহষ্ট্রেট আমলী আদলতে নং -১ এ দন্ড বিধির ৪১০/৪২০ ধারায় মামলা দায়ের করি । যা চলমান আছে ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য