দিনাজপুর সংবাদাতাঃ এ বছর আসছে ঈদুল ফিতরের পর দিনই স্ত্রীকে বিদায় নিয়ে স্বপ্নের ঘর বাঁধার কথা তরুন ফটো সাংবাদিক আসেফ তাজোয়ার অর্ণবের। কিন্তু তার স্বপ্ন আর পুরণ হলো না। তার আগেই সকলকে কাঁদিয়ে এ পৃথিবী থেকে চিরতরে বিদায় নিল অর্ণব। ১৯ জানুয়ারি ২০২০ রোববার আনুমানিক সকাল ১০ টায় সকলের অজান্তে ঘরের মধ্যে একাকি ঘুমন্ত অবস্থায় ইন্তেকাল করে অর্ণব (ইন্না……….রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ২৬ বছর।

পারিবারিক সূত্রে আরো জানা যায়, অর্নবদের বাসায় নির্মান কাজ চলায় তারা বর্তমানে মডার্ণ মোড়স্থ গাউশতলা গলিতে এক বাড়ীতে ভাড়া আছে। অর্ণব তার শয়ন কক্ষে ঘুমাচ্ছিল। দুপুর আড়াইটার দিকে তার স্ত্রী তার বাসায় গিয়ে দেখে অর্ণব তখনও ঘুমাচ্ছে কিন্তু তার হাত-পা ঠান্ডা হয়ে আছে।

তখন সে ভয় পেয়ে তার শশুরসহ বন্ধু-বান্ধবদের ডাকে। তারা এসে অর্ণবকে অনেক ডাকাডাকির পরেও কোন সাড়া শব্দ না পেয়ে বেলা ৩ টার দিকে এম. আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক জানান হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে অর্ণব ৪-৫ ঘন্টা আগে ইন্তেকাল করেছেন।

এদিকে পরিবারের লোকজন অর্ণবের লাশ বাড়ীতে নিয়ে আসলে সেখানে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের সৃষ্টি হয়। অশ্রু সিক্ত নয়নে শেষ বারের মত অর্ণবকে একবার দেখতে ভীড় জমায় বিপুল সংখ্যক মানুষ। অর্ণবের এই অকাল মৃত্যুকে যেন কোন ভাবেই মেনে নিতে পারছিল না তারা। অন্যদিকে সবার প্রিয় অর্ণবের অকাল মৃত্যুতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক শোক জানায় অনেকে।

উল্লেখ্য, সর্বদা হাস্যোজ্জল, সদালাপি আসেফ তাজোয়ার অর্ণব দিনাজপুর সরকারি কলেজের অনার্স তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিল। সে দৈনিক আলোচিত কন্ঠ পত্রিকার দিনাজপুর জেলা প্রতিনিধি ও সাপ্তাহিক আওয়ামী কন্ঠের ফটো সাংবাদিক, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন আমরা কো’জন এর সাধারন সম্পাদক হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

২০ জানুয়ারী সোমবার দিনাজপুর একাডেমী স্কুল মাঠ প্রাঙ্গনে সৈয়দ আলম এর পুত্র তরুন ফটো সাংবাদিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন আমরা কো’জন এর সাধারন সম্পাদক আশহাফ তাজোর অর্ণবের জানাযা সম্পন্ন হয়েছে। জানাযা নামাজে সর্বস্তরের মানুষ অংশ গ্রহন করে। কালিতলাস্থ সোনাপীর কবরস্থানে দাফনকার্য সম্পন্ন ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য