ইয়েমেনের একটি সামরিক প্রশিক্ষণ শিবিরে হুতি বিদ্রোহীদের হামলায় সামরিক বাহিনীর ৬০ সদস্য নিহত ও বহু আহত হয়েছে।

শনিবার দেশটির মারিব শহরে হামলার এ ঘটনা ঘটে বলে সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন আল আখবরিয়ার ওই দিনের সন্ধ্যার খবরে বলা হয়েছে, জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

হামলায় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র ও ড্রোন ব্যবহার করা হয়েছে, কয়েকটি সূত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে তারা এমনটি বলেছে বলে আল আখবরিয়া জানিয়েছে।

তবে তাৎক্ষণিকভাবে এ হামলার দায় স্বীকার করে কোনো বিবৃতি দেয়নি হুতি বিদ্রোহীরা।

ইয়েমেনের সৌদি ও যুক্তরাষ্ট্রপন্থি সরকারি বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াই করছে ইরানপন্থি হুতি বিদ্রোহীরা। এখানে সৌদি আরবের সঙ্গে ইরানের একটি ছায়া যুদ্ধ চলছে বলে মত বিশ্লেষকদের।

ইয়েমেনের রাজধানী সানাসহ দেশটির অধিকাংশ বড় শহরগুলো হুতিদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। তারা ইরানের স্বার্থ রক্ষার জন্য নয় বরং দেশের দুর্নীতিগ্রস্ত পদ্ধতির বিরুদ্ধে লড়াই করছে বলে দাবি করে আসছে।

২০১৫ সালে ইয়েমেনের আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত সরকারের প্রেসিডেন্ট আব্দ রাব্বু মনসুর হাদিকে ক্ষমতা থেকে উচ্ছেদ করে হুতিরা সানা দখল করে নিলে দেশটির গৃহযুদ্ধে সরাসরি হস্তক্ষেপ করে সৌদি আরব। সৌদির রাজধানী রিয়াদে আশ্রয় নেওয়া হাদিকে ফের ক্ষমতাসীন করতে হুতিদের বিরুদ্ধে বিমান হামলা ও স্থল লড়াই শুরু করে সৌদি নেতৃত্বাধীন আরব জোট বাহিনী।

তাদের সমর্থনে ইয়েমেনের দক্ষিণাঞ্চলীয় বন্দর শহর এডেনকে কেন্দ্র করে নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার চেষ্টা করছে হাদি সরকার।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য