হাঁটাচলায় সক্ষম বিশ্বের সবচেয়ে খর্বাকৃতির মানুষ খগেন্দ্র থাপা মগর মারা গেছেন।

শুক্রবার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২৭ বছর বয়সী এ নেপালির মৃত্যু হয় বলে তার ভাই নিশ্চিত করেছেন।

খগেন্দ্রর উচ্চতা ছিল ২ ফুট ২ দশমিক ৪১ ইঞ্চি। তিনি নিউমোনিয়ায় ভুগছিলেন বলে অন্য একটি বার্তা সংস্থার বরাত দিয়ে বিবিসি জানিয়েছে।

হাঁটাচলায় সক্ষম ও অক্ষম এ দুটি ভাগে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস খর্বাকৃতির মানুষ নির্বাচন করে থাকে।

ফিলিপিন্সের জুনরে বালাউইং চলতে ফিরতে অক্ষম ক্যাটাগরিতে বিশ্বের সবচেয়ে খর্বাকৃতির মানুষ, তার উচ্চতা ২ ফুটের সামান্য নিচে।

২০১০ সালে খগেন্দ্রর ১৮তম জন্মদিনে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস তাকে বিশ্বের সবচেয়ে খর্বাকৃতির মানুষের স্বীকৃতি দিয়েছিল।

“আমি নিজেকে ছোট বলে মনে করি না; আমি বড় মানুষ; এই সম্মাননা তা প্রমাণ করার এবং আমার ও পরিবারের জন্য যথোপযুক্ত ঘর পেতে ভূমিকা রাখবে বলে আশা করছি,” বলেছিলেন নেপালের বাগলুং জেলায় জন্ম নেওয়া খগেন্দ্র।

স্বদেশি ১ ফুট সাড়ে ৯ ইঞ্চি উচ্চতার চন্দ্র বাহাদুর দাঙ্গির কাছে কিছু সময়ের জন্য খেতাবটি হারিয়েও ফেলেছিলেন তিনি। ২০১৫ সালে দাঙ্গির মৃত্যু হলে খগেন্দ্র ফের হাঁটাচলায় সক্ষম ক্যাটাগরিতে বিশ্বের সবচেয়ে খর্বাকৃতির মানুষের স্বীকৃতি পান।

তার মৃত্যুতে গভীর শোক জানিয়েছে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস।

প্রতিষ্ঠানটির প্রধান সস্পাদক ক্রেইগ গ্লেন্ডি বলেছেন, “তার (খগেন্দ্র) প্রাণোচ্ছ্বল হাসি এতটাই সংক্রামক ছিল যে তা তার সঙ্গে দেখা হওয়া যে কারো হৃদয়েও সঞ্চারিত হতো।”

খগেন্দ্রর মৃত্যুর পর কলম্বিয়ার এডওয়ার্ড হার্নান্দেজই এখন হাঁটাচলায় সক্ষম ক্যাটাগরিতে বিশ্বের সবচেয়ে খর্বাকৃতির মানুষ হিসেবে বিবেচিত হবেন, জানিয়েছে বিবিসি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য