নীলফামারীর ডিমলায় নয় বছরের শিশু বৃষ্টি আক্তার শীত নিবারন করতে গিয়ে অগ্নিদগ্ধ হয়ে শরীরের ৬০ ভাগ পুড়ে গিয়ে ডিমলা হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে।

জানাগেছে, উপজেলার গয়াযবাড়ী ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের (উকিল পাড়া) গ্রামের প্রতিবন্দি অসহায় আতাউড় রহমানের মেয়ে ও দক্ষিন খড়িবাড়ী মুক্তা নিকেতন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২য় শ্রেনীর ছাত্রী বৃষ্টি আক্তার(৯) সন্ধায় খড়কুটো জ্বালিয়ে শীত নিবারনের সময় তার পড়নের কাপড়ে আগুন লেগে শরীরের প্রায় ৬০ শতাংশ পুড়ে যায়।

অগ্নিদগ্ধ বৃষ্টিকে ওই রাতেই চিকিৎসার জন্য ডিমলা হাসপাতালে ভর্তি করালে কর্তব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানতরিত করে।

অসহায় পরিবারটি চিকিৎসার খরচ বহন করতে না পারায় আবারো ডিমলা হাসপাতালে এনে বৃষ্টিকে ভর্তি করায়।

সোমবার ডিমলা উপজেলায় আইন শৃঙ্খলা সভায় বৃষ্টির বিষয়টি সাংবাদিকরা তুলে ধরলে ডিমলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জয়শ্রী রানী রায় বৃষ্টির খোজখবর নেয়ার জন্য ডিমলা হাসপাতালে ছুটে যান। এবং বৃষ্টির উন্নত চিকিৎসার জন্য সরকারীভাবে আর্থিক সহায়তা দেয়ার আশ্বাস প্রদান করে বৃষ্টিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপালের বার্ন ইউনিটে পাঠানোর উদ্দেগ গ্রহন করেন।

বৃষ্টির অসহায় পিতা প্রতিবন্দি আতাউড় রহমান মেয়ের চিকিৎসার জন্য দেশের সকলের কাছে সাহায্যের আবেদন করেন।

সাহায্য পাঠানোর বিকাশ নাম্বার ০১৭৪৪৩২০২৫৩(দাদু)। এ ব্যাপারে ডিমলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জয়শ্রী রানী রায় বলেন, অগ্নিদগ্ধ অসহার বৃষ্টিকেদেখতে ডিমলা হাসপাতালে গিয়েছিলাম। তার উন্নত চিকিৎসার জন্য যাবতীয় ব্যবস্থা করার চেষ্টা করছি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য