মেক্সিকোর উত্তরাঞ্চলীয় একটি স্কুলে ১১ বছর বয়সী এক ছাত্রের গুলিতে এক শিক্ষক নিহত ও আরও অন্তত ছয় জন আহত হওয়ার পর নিজের অস্ত্রের গুলিতে আত্মহত্যা করেছে ওই বালক।

শুক্রবার কোয়াউইলা রাজ্যের তোরেওন শহরের বেসরকারি কোলেহিয়ো সারাভান্তেস স্কুলে এ ঘটনা ঘটে বলে কর্মকর্তাদের বরাতে জানিয়েছে বিবিসি।

কী কারণে ওই বালক এ ঘটনা ঘটিয়েছে তাৎক্ষণিকভাবে পরিষ্কার হয়নি।

মিলেনিও টেলিভিশনকে তোরেওনের মেয়র হোর্হে জারমেইনো জানিয়েছেন, দাদীর সঙ্গে বসবাসকারী ওই ছেলে ভাল ছাত্র ছিল এবং তার ব্যবহার স্বাভাবিক ছিল।

হামলা চালাতে দুটি আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে সে স্কুলে এসেছিল বলে জারমেইনো জানিয়েছেন। তবে বালক অস্ত্রগুলো কীভাবে সংগ্রহ করেছে তা পরিষ্কার নয়।

রাজধানী মেক্সিকো থেকে ৮০০ কিলোমিটার দূরে তোরেওনের স্থানীয় সময় সকাল ৯টায় গোলাগুলির ওই ঘটনাটি ঘটে।

ঘটনার পরপরই বহু পুলিশ ও সৈন্য স্কুলটি ঘিরে ফেলে। পুলিশ আত্মহত্যাকারী বালকে বাবা-মাকে খুঁজে বের করার চেষ্টা করছে বলে মেয়র জানিয়েছেন।

স্কুল শুরুর সময় ছাত্রটি বাথরুমে যাওয়ার কথা বলেছিল বলে কোয়াউইলার গভর্নর মিগেল রিকেলমে জানিয়েছেন। এর ১৫ মিনিট পর শিক্ষক ছাত্রের খোঁজে যাওয়ার পর বালক গুলি করতে করতে সামনে আসে বলে জানান তিনি।

“তার ব্যবহার ভাল ছিল, কিন্তু সে তার কিছু সহপাঠিকে বলেছিল ‘আজই সেই দিন,” বলেন তিনি।

ঘটনার সময় বালকটি একটি টি-শার্ট পরা ছিল আর সেটিতে ফাস্ট পারসন শুট্যার ভিডিও গেম ‘ন্যাচারাল সিলেকশনের’ নাম লেখা ছিল বলে জানিয়েছে মিগেল।

সম্প্রতি মেক্সিকোতে খুনের সংখ্যা বৃদ্ধি পেলেও স্কুলে গোলাগুলির ঘটনা অত্যন্ত বিরল।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য