ইরানের শীর্ষ জেনারেল কাসেম সোলাইমানিকে হত্যার পর যুক্তরাষ্ট্রের বড় অস্ত্র কোম্পানিগুলোর মজুদের দাম বেড়েছে। পুঁজি বাজার বিশ্লেষকদের বিশ্বাস মধ্যপ্রাচ্যে ক্রমবর্ধমান উত্তেজনায় সামরিক ব্যয় বাড়তে পারে।

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশে গত শুক্রবার বাগদাদ বিমানবন্দরে হামলা চালিয়ে ইরানের প্রভাবশালী জেনারেল কাসেম সোলাইমানিকে হত্যা করে যুক্তরাষ্ট্র। এই ঘটনার মারাত্মক প্রতিশোধ নেওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছে ইরান। মধ্যপ্রাচ্যে অতিরিক্ত তিন হাজার সেনা পাঠানোর ঘোষণা দিয়েছে ওয়াশিংটন। এরপরও শনিবার রাতে বাগদাদের মার্কিন দূতাবাসের কাছে রকেট হামলার ঘটনা ঘটেছে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে সব মার্কিন নাগরিককে ইরাক ছাড়ার পরামর্শ দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

শুক্রবার বাগদাদ বিমানবন্দরে হামলার পরই বিশ্ববাজারে বেড়ে যায় তেলের দাম। অস্ত্রের দাম বাড়ার আশঙ্কা দের আশঙ্কা মধ্যপ্রাচ্যের উত্তেজনায় সামরিক ব্যয়ের পরিমাণ বেড়ে যেতে পারে। গত শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা প্রযুক্তি কোম্পানি নর্থরোপ গ্রুমানের মজুদের দাম বেড়েছে পাঁচ দশমিক ৪৩ শতাংশ। একইদিন লকহেড মার্টিনের বেড়েছে তিন দশমিক ৬ শতাংশ আর রায়থনের বেড়েছে এক দশমিক পাঁচ শতাংশ।

ওয়াশিংটনের কোওয়েন গবেষণা গ্রুপের রোমান সুয়েটজার বলেন, শুক্রবারের বিমান হামলার মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র-ইরান বিরোধ সরাসরি সংঘাতের দিকে মোড় নিয়েছে। এক বিশ্লেষণে সোলাইমানির হত্যাকে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের যৌথবাহিনীর প্রধান বা কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার পরিচালককে হত্যা করে তার কৃতিত্ব নেওয়ার শামিল বলে মন্তব্য করেছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য