দিনাজপুর সংবাদাতাঃ বীরগঞ্জে তীব্র শীতে জনজীবন বিপর্যস্থ হয়ে পড়েছে। শৈত্য প্রবাহ ও ঘন কুয়াশার কারণে এলাকার দরিদ্র ও বৃদ্ধ মানুষেরা বেশি কষ্ট পাচ্ছেন।গত কয়েক দিন যাবৎ সূর্যের মুখ দেখা যায়নি। প্রচন্ড শীতের কারণে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ঘন কুয়াশার কারণে মানুষ ঘর থেকে বের হতে সাহস পাচ্ছে না।

বয়স্ক নারী পুরুষ ও শিশুরা শীতজনিত নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। ফলে মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রাও ব্যহত হচ্ছে। রোববার সরেজমিনে বীরগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে শীতের তীব্রতার কারণে ভবানীপুর গ্রামের মোঃ দুলাল শিশু সন্তান মহিন (দেড় মাস), দক্ষিণ ফরিদপুর গ্রামের মনিরা খাতুন মেয়ে মজিলা (১১ মাস), বলরামপুর গ্রামের বেলালের ছেলে রাধি(১৪ মাস) মলিন চন্দ্রের ছেলে বিশ্বাষ( ১৪ মাস)সহ ২২ শিশু ডায়রিয়া রোগে আক্রান্ত রয়েছে।

হাসপাতালের নার্সরা জানান, শীতে গত দুইদিন আগে প্রতিদিন ৭/৮ জন ডায়রিয়ায় আক্রান্ত শিশুর ভর্তি করা হয়েছে। শীত ও ঘন কুয়াশার কারণে প্রয়োজন ছাড়া মানুষ ঘরের বাইরে তেমনটা যাচ্ছেন না। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিার্থীদের উপস্থিতিও গ্রামাঞ্চলে কম। দুস্থ ও শীতার্ত মানুষগুলো শীতের হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য কাঠ, খড়, শুকনো লতা-পাতা দিয়ে আগুন জ্বালিয়ে শীত নিবারনের জন্য চেষ্টা করছেন।

শীতের কারনে নানা রোগের প্রার্দুভাব দেখা দিয়েছে। সন্ধ্যা নামার সাথে সাথে নেমে আসে শৈত্য প্রবাহ ও ঘন কুয়াশা। এ জন্য যান চলাচলে হচ্ছে চরম অসুবিধা। বোর মৌসুমের বীজতলা নিয়েও আশংকায় আছেন কৃষকরা। তীব্র শীতের কারণে গরম কাপড়ের চাহিদা ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য