দিনাজপুর সংবাদাতাঃ বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা ও বাদ্যযন্ত্রের তালে তালে নেচে-গেয়ে উল্লাসে, নানা আয়োজনের মধ্যদিয়ে উৎসব মুখর পরিবেশে দিনাজপুরের ফুলবাড়ীর সুজাপুর সরকারী মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের শতবর্ষ উদযাপন করা হয়েছে।

২৮ ডিসেম্বর শনিবার দিনব্যাপী দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলা সদরের ঐতিহ্যবাহী প্রাচীনতম শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সুজাপুর সরকারী মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের শতবর্ষপূর্তি উদযাপন করা হয়। সুজাপুর সরকারী মডেল উচ্চ বিদ্যালয় চত্বরে,বাবা-ছেলে-মেয়ে,দাদা-দাদি-নাতি-নাতনি, যুবক- বৃদ্ধ প্রায় কয়েক হাজার নানা বয়সী নারী ও পুরুষ মিলেমিশে একাকার।

শতবর্ষপূর্তি উদযাপন উপলক্ষে সুজাপুর সরকারী মডেল উচ্চ বিদ্যালয় ও মাঠের চারপাশ বর্ণিল সাজে সজ্জিত করা হয়। সকাল ৯টায় জাতীয় সংগীতের তালে তালে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। এরপর বেলুন ও ফেষ্টুন উড়িয়ে উৎসবের উদ্বোধন করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি এবং বিদ্যালয়ের প্রাক্তন কৃতি ছাত্র সাবেক প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী,বর্তমান প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার (এমপি)।

উদ্বোধন শেষে বিদ্যালয় মাঠ থেকে প্রধান অতিথি প্রথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার এমপি’র নেতৃত্বে এক বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়। শোভাযাত্রাটি ফুলবাড়ী পৌর শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে বিদ্যালয় চত্বরে এসে শেষ হয়।

শোভাযাত্রাটি শেষে শতবর্ষপূর্তি প্রীতিসম্মেলন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন শতবর্ষপূর্তি উদযাপন কমিটির সভাপতি ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মুশফিকুর রহমান বাবুল। উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক ইউপি চেয়ারম্যান মো. মানিক রতনের সঞ্চালনায় আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার (এমপি)।

এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, সাবেক জাতীয় সংসদ সদস্য ও বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র মোহাম্মদ শোয়েব বাবুল, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আজিজুল ইমাম চৌধুরী, দিনাজপুর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড চেয়ারম্যান প্রফেসর মো. আবু বক্কর, সচিব প্রফেসর মো. আমিনুল হক সরকার, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আতাউর রহমান মিল্টন, পার্বতীপুর সরকারী কলেজের অধ্যক্ষ মো. গোলাম রসুল মন্টু, উপাধ্যক্ষ শাহ মো. আব্দুল কুদ্দুস, জেলা পরিষদের সদস্য আলহাজ্ব মো. কামরুজ্জামান শাহ কামরু, প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক মো. মজিবর রহমান, আমেরিকা প্রবাসী প্রাক্তন ছাত্র প্রকৌশলী মো. মোশাররফ হোসেন, বর্তমান প্রধান শিক্ষক সঞ্জয় চক্রবর্তী প্রমুখ। তাঁরা শৈশব-কৈশোরের নানা স্মৃতিচারণ করে বক্তব্য রাখেন।

বিকেল তিনটায় একই মঞ্চে শতবর্ষ উদযাপন কমিটির আহবায়ক ও উপজেলা শাখা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মুশফিকুর রহমান বাবুলের সভাপতিত্বে গুণীজন ও কৃতিশিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা প্রদান করা হয়। শেষে বিকেল চারটায় এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে তারকা কন্ঠশিল্পী নকুল কুমার বিশ্বাস মনমাতানো সংগীত পরিবেশন করে দর্শকদের মাতিয়ে তোলেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য