বিতর্কিত সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভে ২০ ডিসেম্বর উত্তর প্রদেশের মিরাট শহরে সহিংসতায় সবচেয়ে বেশি মানুষ নিহত হয়। সম্প্রতি ওই দিনের একটি ভিডিও ফুটেজ সামনে এসেছে। এতে এক পুলিশ কর্মকর্তাকে স্থানীয় মুসলিম বিক্ষোভকারীদের পাকিস্তানে চলে যাওয়ার পরামর্শ দিতে দেখা গেছে। বেশ কয়েকটি ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ওই কর্মকর্তাকে মিরাটের সুপারিন্টেড অব পুলিশ অখিলেশ নারায়ণ সিং বলে শনাক্ত করেছে।

ভিডিওটিতে দাঙ্গা পোশাক পরিহিত পুলিশ কর্মকর্তাকে দুই বেসামরিক ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলতে দেখা গেছে। টুপি পরিহিত ওই ব্যক্তিদের উদ্দেশ করে তিনি বলেন, ‘কোথায় যাবে? এই গলি আমি ঠিক করে দেব’।

আলাপরত ব্যক্তিরা নামাজ পড়তে যাওয়ার কথা জানালে পুলিশ কর্মকর্তা তখন বলেন, ‘এখানে যারা কালো ও নীল ব্যাজ পরে আছে তাদের পাকিস্তানে চলে যেতে বলো’। তখন আরেক পুলিশ কর্মকর্তাকে বলতে শোনা যায়, ‘সব কটাকে পুড়িয়ে দিতে এক সেকেন্ড লাগবে’।

পরে পুলিশ কর্মকর্তা অখিলেশ নারায়ণ সিংকে মুসলিমদের লক্ষ্য করে আরও বলতে শোনা গেছে, ‘ভারতে থাকতে না চাইলে পাকিস্তানে চলে যাও’। উপস্থিত দুই ব্যক্তি ‘ঠিক বলেছ’ বলে চলে যেতে উদ্যত হলে আবারও ফিরে আসেন পুলিশ কর্মকর্তা। বলেন, ‘আমি প্রতিটি বাড়ির সবাইকে জেলে পাঠাবো’।

প্রসঙ্গত, নাগরিকত্ব আইন সংশোধনের পর ভারত জুড়ে শুরু হওয়া বিক্ষোভে সবচেয়ে বেশি হতাহতের ঘটনা ঘটেছে উত্তর প্রদেশে। বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের সময় ভাঙচুর হয়েছে বেশ কিছু সরকারি সম্পত্তি। সহিংসতার ঘটনায় ‘বদলা’ নেওয়ার ঘোষণা দেয় উত্তর প্রদেশে ক্ষমতাসীন বিজেপি সরকার। বদলা হিসেবে মুসলিমদের সম্পদ জব্দ করে তা অন্যত্র বিক্রির উদ্যোগ নেওয়ার কথা বলা হয়। যোগী আদিত্যনাথ সরকারের ওই ঘোষণার পর শুক্রবার প্রশাসনের হাতে ৬ লাখ ২৭ হাজার ৫০৭ টাকার ডিমান্ড ড্রাফট তুলে দিয়েছেন স্থানীয় মুসলমানেরা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য