অস্ট্রেলিয়ায় চলছে তীব্র তাপদাহ। এবারের তীব্র গরমের ছাড়িয়েছে পূর্বের সব রেকর্ড। এই তাপদাহ থেকে দাবানল ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা থেকে তাই দেশটির নিউ সাউথ ওয়েলস রাজ্যে ঘোষণা করা হয়েছে জরুরী অবস্থা। বুধবার নিউ সাউথ ওয়েলস রাজ্যের প্রিমিয়ার গ্ল্যাডিস বেরেজিক্লিয়ান সাত দিনের জরুরী অবস্থা ঘোষণা করেন। খবর বিবিসি’র।

জানা যায়, নিউ সাউথ ওয়েলস কর্তৃপক্ষ এক মাস ধরে জ্বলতে থাকা অন্তত ১০০টি দাবালন নিয়ন্ত্রণে আনতে চেষ্টা করে যাচ্ছে। তাপমাত্রার অবস্থার আরও অবনতি ঘটতে পারে এমন আবহাওয়া পূর্বাভাসের বিপরীতে রাজ্যের প্রিমিয়ার গ্ল্যাডিস বেরেজিক্লিয়ান সাত দিনের জরুরী অবস্থা ঘোষণা করেন। তিনি বলেন, ‘আগামী কয়েকদিন তীব্র বায়ু প্রবাহ ও তাপদাহের ফলে অবস্থা কেমন হবে সেটাই আমাদের সবচেয়ে বড় শঙ্কার বিষয়।’

এর আগে, মঙ্গলবার ইতিহাসের সর্বোচ্চ গড় তাপমাত্রা ৪০ দশমিক নয় ডিগ্রি সেলসিয়াস অনুভব করে অস্ট্রেলিয়া। আর সেই রেকর্ডও ভেঙ্গে পড়ে বুধবার। এ দিন সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৪১ দশমিক তিন ডিগ্রি সেলসিয়াস। এর আগে ২০১৩ সালের ৭ জানুয়ারি দেশটিতে সর্বোচ্চ গড় তাপমাত্রা ৪০ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছিল। চলতি সপ্তাহে তাপমাত্রা আরও বাড়তে পারে বলে সতর্ক করেছে আবহাওয়া দপ্তর।

দেশটির আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, এ সপ্তাহে দেশের কোনো কোনো অঞ্চলে তাপমাত্রা ৫০ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছাড়িয়ে যেতে পারে।

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, বৃহস্পতিবার (১৯ ডিসেম্বর) দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়ার রিভারল্যান্ড ও অ্যাডিল্যাড শহরে তাপমাত্রা হতে পারে ৫০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের উপরে। শনিবার নাগাদ সিডনির তাপমাত্রা ৪৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসে পৌঁছাতে পারে। দেশটির রাজধানী ক্যানবেরার তাপমাত্রা হতে পারে ৪৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

অস্ট্রেলিয়া গত কয়েক মাস যাবত তীব্র খরা ও ভয়াবহ দাবানলে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। দাবানলে এখন পর্যন্ত ছয় জন প্রাণ হারিয়েছেন। এই অবস্থায় তাপমাত্রা বৃদ্ধির ঘটনা খারাপ কিছুর বার্তা দিচ্ছে, কেননা বিশ্বের বাসযোগ্য শহরের তালিকায় থাকা অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্ন শহরের গড় তাপমাত্রা যেখানে ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াস থাকে সেখানে চলতি সপ্তাহে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে পৌঁছাতে যাচ্ছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য