ভারতের প্রখ্যাত ইতিহাসবিদ রামচন্দ্র গুহকে সাক্ষাৎকার দেওয়ার সময় তার শরীরে ধাক্কা দিয়ে আটক করেছে একদল পুলিশ। বৃহস্পতিবার ব্যাঙ্গালুরুতে পুলিশি নিষেধাজ্ঞা অগ্রাহ্য করে বিতর্কিত নাগরিকত্ব আইনবিরোধী বিক্ষোভে অংশ নিলে তাকে আটক করা হয়। শহরটি টাউন হলে পুলিশ ১৪৪ ধারা জারি করেছে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি এখবর জানিয়েছে।

বাংলাদেশ, আফগানিস্তান ও পাকিস্তান থেকে নিপীড়নের মুখে ভারতে পালিয়ে যাওয়া হিন্দু, বৌদ্ধ, শিখ, জৈন, পার্সি ও খ্রিস্টানদের নাগরিকত্ব নিশ্চিতে সম্প্রতি আইন সংশোধন করেছে ভারত। গত ১২ ডিসেম্বর রাতে প্রেসিডেন্টের স্বাক্ষরের পরেই আইনে পরিণত হয়েছে বিতর্কিত বিলটি। এই বিতর্কিত আইন প্রত্যাহারের দাবিতে দেশজুড়ে সরব একাধিক রাজনৈতিক দল। বিরোধীরা এই আইনকে ‘মুসলিমবিরোধী’ বলে আখ্যা দিয়েছে।

দিল্লির জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশি হামলার পর তা গণআন্দোলনের চেহারা পেয়েছে। আন্দোলনের সমর্থনে হার্ভাডসহ বিশ্বের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা সমর্থন জানিয়েছেন। বিক্ষোভ ঠেকাতে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে রাজধানী দিল্লি, উত্তর প্রদেশ, ব্যাঙ্গালুরুসহ কর্ণাটকের কিছু এলাকায়। পুলিশের দাবি, সহিংসতা এড়াতে এই নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। চেন্নাইয়ের মতো বিভিন্ন শহরের পুলিশ মিছিল, সমাবেশ বা কোনও ধরনের বিক্ষোবের অনুমতি দিচ্ছেন না। পুলিশি নিষেধাজ্ঞা অগ্রাহ্য করে বিক্ষোভে নামায় বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

ইতিহাসবিদ রামচন্দ্র গুহ এনডিটিভিকে বলেন, গান্ধীর একটি পোস্টার হাতে নিয়ে দাঁড়ানো এবং সংবিধান নিয়ে সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলায় আমাকে আটক করেছে পুলিশ।

তিনি আরও বলেন, পুলিশ কেন্দ্রীয় সরকারের নির্দেশে কাজ করছে। একটি বৈষম্যমূলক আইনের বিরুদ্ধে আমরা অহিংস আন্দোলন করছি সুশৃঙ্খল উপায়ে। এখানে দেখুন সবাই শান্তিপূর্ণভাবে সবাই বিক্ষোভ করছে। আপনারা কোনও সহিংসতা দেখেছেন?

কিন্তু পুরো বাক্য শেষ করার পূর্বে পুলিশের একটি দল তার শরীরে ধাক্কা দিয়ে তাকে সেখান থেকে সরিয়ে নেয় এবং তাকে আটক করে। পরে তাকে আটক বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে একটি বাসে তুলে নেওয়া হয়।

প্রায় ৩০ জন বিক্ষোভকারীকে পতাকা ও প্ল্যাকার্ডসহ গ্রেফতার করেছে দাঙ্গা পুলিশ। এক উচ্চ পদস্থ পুলিশ কর্মকর্তাকে দেখা গেছে বিক্ষোভকারীদের কাছ থেকে পতাকা কেড়ে নিতে।

বৃহস্পতিবার ভারতের বিভিন্ন এলাকায় নাগরিকত্ব আইন বিরোধী বিক্ষোভের পরিকল্পনা করা হয়েছে।

বেঙ্গালুরুতে বিক্ষোভ-সমাবেশে নিষেধাজ্ঞা ও ১৪৪ ধারা জারির সিদ্ধান্তকে সমর্থন করে কর্নাটকের মুখ্য মন্ত্রী বিএস ইয়েদুয়ারাপ্পা কংগ্রেসের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছেন। তিনি বলেছেন, বিক্ষোভের নেপথ্যে কংগ্রেস রয়েছে। মুসলিমদের ভালোমন্দ দেখার দায়িত্ব আমাদের। শান্তি বজায় রাখার আহ্বান জানাচ্ছি। কংগ্রেস নেতারা যদি বিক্ষোভে সমর্থন দেওয়া অব্যাহত রাখেন তাহলে তাদের ভুক্তভোগী হতে হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য