বেশিরভাগ সময় মাথাব্যথায় ভোগার অদ্ভুত কিছু কারণ থাকতে পারে।

মানসিক চাপ ছাড়াও সাধারণ কিছু অভ্যাস মাথাব্যথার পেছনে দায়ী, যা আপনাকে অবাক করতে পারে। এমন কিছু অদ্ভুত কারণ সম্পর্কে জানানো হল স্বাস্থ্যবিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে।

কফি: দিনের শুরুতে শরীর চাঙা করতে চা-কফি ছাড়া যেন চলেই না। তবে এই পানীয়র যে ‘ক্যাফেইন’ শরীর-মন চাঙা করছে, অতিরিক্ত পান করলে সেই ‘ক্যাফেইন’ই হতে পারে দপদপানি মাথাব্যথার কারণ। অতিরিক্ত ‘ক্যাফেইন’ রক্তনালী সঙ্কীর্ণ করে ফেলতে পারে। আর প্রতিদিন পান করার কারণে এতে আসক্তি বা নির্ভরশীলতা তৈরি হয়। যেদিন চা-কফি পান করা হবে না, সেদিন রক্তনালী সংকুচিত হবে না, ফলে দেখা দিতে পারে মাথাব্যথা।

পানিশূন্যতা: শরীর সুস্থ রাখতে পর্যাপ্ত পানি পানের গুরুত্ব বলে শেষ করা মুশকিল। শরীরের পানির চাহিদা পূরণ না হলে মাথাব্যথাও দেখা দিতে পারে। তাই ঘন ঘন মাথাব্যথা দেখা দিলে পানি পানের পরিমাণের দিকে নজর দিতে হবে।

হরমোন: শরীরের বিভিন্ন কার্যাবলী নিয়ন্ত্রণে বড় ভূমিকা পালন করে হরমোন। তাই হরমোনের মাত্রায় তারতম্য হলে ফলাফল হতে পারে মাথাব্যথা। বিশেষত, ‘ইস্ট্রোজেন’ হরমোনের মাত্রা স্বাভাবিক মাত্রায় না থাকলে মাথাব্যথা হয়। গর্ভাবস্থায় ‘ইস্ট্রোজেন’ হরমোনের মাত্রায় তারতম্য দেখা দেয়, যা মাথাব্যথাসহ বিভিন্ন সমস্যা ডেকে আনে। তাই মাথাব্যথার কারণ হিসেবে হরমোনের মাত্রাকে সন্দেহজনক মনে হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

শোয়া-বসার ধরন: দিনের একটা বড় সময় কাটানো হয় বসে, আবার রাতে সাত থেকে আট ঘণ্টা ঘুমের সময়টা কাটে বিছানায় শুয়ে। তাই এই শোয়া-বসার ধরন ঠিক না হলে মাথাব্যথা হতে পারে। পাশাপাশি বদহজম, পিঠ বা পা ব্যথা দেখা দিতে পারে।

বৈদ্যুতিক পর্দা: প্রয়োজনে কিংবা বিনোদন, কারণ যাই হোক স্মার্টফোন, কম্পিউটার, ল্যাপটপ ইত্যাদির বৈদ্যুতিক পর্দার দিকে অনেকটা সময় তাকিয়ে থাকতে হয় প্রতিদিন। এই ধরনের পর্দাগুলো থেকে নির্গত উজ্জ্বল আলো চোখের ক্ষতি করার পাশাপাশি মাথাব্যথারও কারণ হয়। চোখের ওপর বাড়তি চাপ পড়ার কারণেই মূলত মাথাব্যথা হয়ে থাকে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য