ইসরাইলে এক বছরের মধ্যে তৃতীয়বারের মতো জাতীয় নির্বাচন হতে যাচ্ছে। এর আগে দু বার নির্বাচন হলেও কোনো দল একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পাওয়ায় এবং সরকার গঠনে রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে ঐক্য না হওয়ায় তৃতীয় দফা নির্বাচন জরুরি হয়ে পড়েছে।

সরকার গঠনের জন্য গতকাল (বুধবার) গ্রিনিচ সময় দিবাগত রাত ১০টা পর্যন্ত সময় ছিল কিন্তু এর মধ্যে তা সম্ভব হয় নি। ফলে এমপিরা তার আগেই পার্লামেন্ট বিলুপ্ত করার বিলে প্রাথমিক অনুমোদন দেন। সে অনুযায়ী আগামী ২ মার্চ জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠানের নতুন তারিখ ঠিক করা হয়েছে।

গত সেপ্টেম্বর মাসে ইসরাইলে এক বছরের কম সময়ের মধ্যে দ্বিতীয়বার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সেই নির্বাচনের পর প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু এবং তার প্রধান প্রতিপক্ষ সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল বেনি গান্তজ তাদের লক্ষ্য অর্জনে ব্যর্থ হন। তারা ক্ষমতা ভাগাভাগিতেও একমত হতে পারেন নি।

সেপ্টেম্বরের নির্বাচনে বেনি গান্তজের মধ্যপন্থি ব্লু অ্যান্ড হোয়াইট জোট ইসরাইলের পার্লামেন্ট নেসেটের ১২০ আসনের মধ্যে ৩৩ আসনে বিজয়ী হয়। অন্যদিকে নেতানিয়াহুর ডানপন্থি লিকুদ পার্টি বিজয়ী হয় ৩২ আসনে। সেখানে সরকার গঠন করতে হলে ৬১ আসন প্রয়োজন। কিন্তু কোনো দলই জোট গঠন করে এই সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করতে পারে নি। এ অবস্থায় ইসরাইলি প্রেসিডেন্ট রোভেন রিভলিন তাদেরকে একটি জাতীয় ঐকমত্যের সরকার গঠনের আহ্বান জানান। এরপর দু দলের মধ্যে ক্ষমতা ভাগাভাগি নিয়ে আলোচনা চলে কিন্তু প্রধানমন্ত্রী পদ কে পাবেন তা নিয়ে দ্বন্দ্ব দেখা দেয়। এতে ওই আলোচনা বানচাল হয়ে যায়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য