সান্না ম্যারিনের বয়স মাত্র ৩৪ এবং তিনিই হতে যাচ্ছেন বিশ্বের সবচেয়ে কমবয়সী প্রধানমন্ত্রী। চলতি সপ্তাহেই তিনি শপথ নিতে যাচ্ছেন ফিনল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে। মূলত নারীদের নেতৃত্বে থাকা একটি কোয়ালিশন সরকারের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করতে যাচ্ছেন তিনি।

বর্তমানে তিনি দেশটির পরিবহন মন্ত্রী হিসেবে কাজ করছেন। প্রধানমন্ত্রী আনত্তি রিনি পদত্যাগের পর সান্না ম্যারিনকেই প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য বেছে নিয়েছে তার দল সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি। নারীদের নেতৃত্বে থাকা পাঁচটি দলের সমন্বয়ে গঠিত একটি মধ্য-বাম ধারার কোয়ালিশন সরকারের নেতৃত্ব দিবেন তিনি।

ডাক বিভাগের ধর্মঘট মোকাবেলাকে কেন্দ্র করে আস্থা ভোটে হেরে পদত্যাগ করেছেন মিস্টার রিনি। এখন সান্না ম্যারিন যখন প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নিবেন তখন তিনি হবে এ মূহুর্তে বিশ্বের সবচেয়ে কম বয়েসী প্রধানমন্ত্রী।

কমবয়সী সরকার প্রধানদের মধ্যে এ মূহুর্তে আছেন নিউজিল্যান্ডের ৩৫ বছর বয়সী প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আর্ডেন এবং ইউক্রেনের ৩৯ বছর বয়সী প্রধানমন্ত্রী ওলেকসি হোনচারুক। খুবই অল্প ভোটের ব্যবধানে আস্থা ভোটে জয়ী হয়ে মিস ম্যারিন সাংবাদিকদের বলেছেন, “আস্থা পুনর্গঠনে আমাদের অনেক কাজ করতে হবে”।

তার বয়স নিয়ে প্রশ্ন ছিলো সাংবাদিকদের তরফ থেকে কিন্তু সেটি তিনি উড়িয়ে দিয়েছেন। বলেছেন, “আমি কোনোদিন আমার বয়স বা লিঙ্গ নিয়ে ভাবিনি। আমি যে কারণে রাজনীতিতে এসেছি তা নিয়েই ভেবেছি এবং সে কারণেই আমাকে ভোট নিয়ে নির্বাচিত করেছে মানুষ”।

মিস ম্যারিন হবেন দেশটির তৃতীয় নারী প্রধানমন্ত্রী। গত এপ্রিলের সাধারণ নির্বাচনে তার দল বৃহত্তম রাজনৈতিক দল হিসেবে আবির্ভূত হয় আর সে কারণেই তার দল প্রধানমন্ত্রী পদে মনোনয়ন দিতে পারে যিনি কোয়ালিশন সরকারের নেতৃত্ব দিবেন।

ফিনিশ ব্রডকাস্টার ওয়াইএলই’র তথ্য অনুযায়ী সান্নে ম্যারিন সিঙ্গেল মায়ের সন্তান। তার পরিবারে তিনিই প্রথম যিনি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়েছিলেন। প্রসঙ্গত, ফিনল্যান্ড এ মূহুর্তে ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রেসিডেন্সির দায়িত্বে আছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য