13_migration-of-muslims-in-assam-indiaভারতের অসম রাজ্যের মুসলমানদের ওপর ‘বর্বরোচিত গণহত্যা’র তীব্র নিন্দা জানিয়েছে দেশটির ইসলামপন্থী সংগঠন জামায়াতে ইসলামী হিন্দ। দলটি এ হত্যাকাণ্ড প্রতিরোধে সরকারের ‘নিস্ক্রিয়’ ভূমিকারও সমালোচনা করেছে। রোববার জামায়াতের পক্ষ থেকে প্রকাশিত এক বিবৃতির বরাত দিয়ে ইরানের স্যাটেলাইট নিউজ চ্যানেল প্রেস টিভি এ খবর জানিয়েছে। বিবৃতিতে এ গণহত্যায় জড়িত প্রকৃত অপরাধীদের অতি দ্রুত আইনের আওতায় এনে বিচার করার দাবি জানানো হয়েছে। ভারতের অসম রাজ্যে সংখ্যালঘু মুসলমানদের ওপর বৃহস্পতি ও শুক্রবার বোড়ো জঙ্গিদের নৃশংস হামলায় নারী ও শিশুসহ অন্তত ৩৩ জন মুসলমান নিহত হয়েছেন। জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল নুসরাত আলী ওই গণহত্যার নিন্দা জানিয়ে অসমের মুসলমানদের জান-মালের নিরাপত্তা দেয়ার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। মানবাধিকার সংগঠনগুলো অসমের মুসলমানদের ওপর হত্যাকাণ্ডের ব্যাপারে সরকার নীরবতা পালন করছে বলে অভিযোগ করেছে। অসম থেকে পাওয়া খবরে জানা গেছে, গত কয়েকমাসে সেখানে বহু মুসলমান নিহত ও প্রায় পাঁচ লাখ মুসলমান ঘর-বাড়ি হারিয়েছেন। ২০১২ সালের জুলাই মাসে অসমে মুসলমান বিরোধী দাঙ্গায় প্রায় ১০০ মানুষ নিহত হয়েছিল। অসমে এমন সময় মুসলমানদের ওপর গণহত্যা চালানো হলো যখন উগ্র ডানপন্থী হিন্দু নেতা নরেন্দ্র মোদিকে বিজেপি’র প্রধানমন্ত্রী প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে এবং ভারতের গণমাধ্যমে তাকে দেশটির সম্ভাব্য প্রধানমন্ত্রী হিসেবে উল্লেখ করা হচ্ছে। নরেন্দ্র মোদি গত ১২ বছরের বেশি সময় ধরে গুজরাট রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন। ওই রাজ্যে ২০০২ সালের মুসলিম বিরোধী দাঙ্গার জন্য ভারতের মুসলমানরা এখনও মোদিকে ক্ষমা করেননি। চলমান লোকসভা নির্বাচনে একজন মুসলমান প্রার্থীও দেয়নি বিজেপি। এমনকি মুসলিম অধ্যুষিত এলাকাগুলোতেও তাদের কোনো মুসলমান প্রার্থী নেই।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য