দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের বীরগঞ্জে ১ গৃহবধুকে আগুনে ঝলসে দিয়েছে পাষন্ড স্বামী, মূমুর্ষ অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে আমেনা।

উপজেলার শিবরামপুর ইউনিয়নের গনপৈত গ্রামের আব্দুর মোতালেবের কন্যা ২ সন্তানের জননী আমেনা বেগম (২৫) সোমবার ২ ডিসেম্বর বিকেলে জানায়, একই উপজেলার পলাশবাড়ী ইউনিয়নের ব্রাহ্মনভিটা নালেরপাড় এলাকার হায়দার আলীর পুত্র আলী আকবর এর সাথে ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা যৌতুক দিয়ে ২০০৮ সালে বিয়ে হয় আমেনার। বিয়ের পর হতে তারা স্বামী-স্ত্রী ঢাকার মিরপুর-২ এ বসবাস করে আসছিল। তাদের ঘরে ১টি কন্যা ও ১টি পুত্র সন্তান রয়েছে। কিছুদিন পূর্ব থেকে আলী আকবর এক পরকিয়ায় জড়িয়ে পরে।

আমেনা পরকিয়ায় বাধা প্রদান করলে নেমে আসে শারিরিক নির্যাতন। আলী আকবর ৭/৮ দিন পূর্বে রাতে বাড়ী ফিরে আমেনার উপর শারিরিক নির্যাতন শুরু করে। এক পর্যায়ে হাত-পা বেধে গ্যাসের চুলায় ছানতা গরম করে গালে লাগিয়ে দিয়ে পুড়ে ঘরে আটক করে রাখে। সুযোগ পেয়ে আমেনা ভাইয়ের বাড়ীতে পালিয়ে গিয়ে বাবা মা কে সংবাদ দেয়। আমেনার বাবা মোতালেব, চাচা বেলাল হোসেন ১ ডিসেম্বর ঢাকা গিয়ে মুমূর্ষ অবস্থায় আমেনাকে ২ ডিসেম্বর বীরগঞ্জের বাড়ীতে নিয়ে আসে।

সংবাদ পেয়ে শিবরামপুর ইউ.পি সদস্য ছফিউল্লাহ্, সাবেক ইউ.পি সদস্য এনামুল হক, ইউনিয়ন আ’লীগ সাধারন সম্পাদক শিক্ষক অমূল্য রতন রায় আমেনা বেগমকে তার বাবার বাড়িতে দেখতে গিয়ে তার শারিরিক অবস্থার ব্যগতিক দেখে দ্রুত বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি করে।

আমেনার শারিরিক অবস্থার অবনতি হলে ৩ ডিসেম্বর বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ কমপ্লেক্স এর ডা: সমরেশ দাস তার উন্নত চিকিৎসার জন্য দিনাজপুর আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বার্ন ইউনিটে ভর্তির জন্য প্রেরণ করেন।

এ রিপোট লেখা পর্যন্ত আমেনা দিমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। অপরদিকে তার পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য