কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে জীবন বাঁচাতে সাহায্যের আকুতি জানিয়েছেন অসহায় নুর হোসেন প্রধান (৪৮)। তিনি উপজেলার বামনডাঙ্গা ইউনিয়নের তেলিয়ানিরপাড় গ্রামের ছেলে। তিনি অবৈতনিকভাবে শিক্ষকতা পেশায় থাকাকালীন ১৯৯৮ সালে কঠিন রোগে আক্রান্ত হলে চাকুরি ছেড়ে দেন।

পরে ঢাকা পিজি হাসপাতালালে পরীক্ষা নীরীক্ষা করলে রিপোর্টে এনকাইলোজিং স্পনডাইলিটিস (বড় জোড়ার প্রদাহ) রোগ ধরা পড়ে। এতে করে অদ্যাবধি তার চলাফেরা, উঠাবসায় সমস্যা, দাঁড়িয়ে প্রসাব-পায়খানা করছেন এবং নামাজ আদায়ে রুকু-সিজদা করতে পারছেন না।

এত কষ্টের মাঝেও সংস্থা থেকে ক্ষুদ্র ঋণ নিয়ে বাড়ির বারান্দায় একটি ছোট্ট মুদির দোকান দিয়ে তার সামান্য আয়ে দুই ছেলের স্কুল-কলেজের লেখাপড়ার খরচ চালিয়ে সংসার চালাচ্ছেন এবং দীর্ঘদিনের এই ব্যাধিতে ইতোমধ্যে ঢাকার পিজি হাসপাতালসহ বিভিন্ন জায়গায় চিকিৎসা করে সহায় সম্বলহীন হয়ে পড়েছেন। কিন্তু রোগ থেকে মুক্তি না পেয়ে পরিবার নিয়ে অসহায় দিনযাপন করছেন।

এদিকে অর্থাভাবে চিকিৎসা করতে না পারায় দিনদিন মরণপথে হাঁটছেন তিনি। সর্বশেষ ঢাকা কেয়ার হাসপাতালের বিশেষজ্ঞ ডাক্তার অধ্যাপক কাজী শহীদুল আলমের নিকট চিকিৎসা নিতে গেলে তিনি অতিসত্বর ভারতের ভেলোর/সিএমসি/এ্যাপোলো হাসপাতাল কিংবা আমেরিকার উন্নত হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়ার পরামর্শ দেন।

এতে তার চিকিৎসার ব্যয় হবে প্রায় ২০ লাখ টাকা। যা তার অসচ্ছল পরিবারের পক্ষে বহন করা কোনোক্রমেই সম্ভব নয়। তাই নিজে সুস্থভাবে বাঁচতে এবং পরিবার-পরিজন বাঁচাতে সমাজের বিত্তবান ও দানশীল ব্যাক্তিদের নিকট আর্থিক সাহায্যের আকুতি জানিয়েছেন। অসহায় নুর হোসেনকে সাহায্য পাঠানোর ঠিকানা-০১৭৭৪৩০৩০৭৪ (বিকাশ-পারসোনাল)।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য