হংকংয়ে গণতন্ত্রপন্থীদের সমর্থন করে এমন একটি বিলে স্বাক্ষর করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। বৃহস্পতিবার স্বাক্ষরিত এই বিলের ফলে ‘হংকং হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড ডেমোক্রেসি অ্যাক্ট’ নামে নতুন একটি আইন পাশ হলো। খবর বিবিসি’র।

নতুন এই আইনের ফলে এখন থেকে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বিশেষ বাণিজ্য সম্পর্ক টিকিয়ে রাখতে হলে হংকংয়ে স্বায়ত্তশাসনের প্রমাণ দেখিয়ে চীনকে প্রতি বছর একবার করে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের কাছ থেকে সার্টিফিকেট নিতে হবে।

আইনে বলা হয়েছে, ‘হংকং চীনের অংশ হলেও এর একটি পৃথক আইনি এবং অর্থনৈতিক ব্যবস্থা রয়েছে’। ‘বার্ষিক পর্যালোচনার মাধ্যমে চীন হংকংয়ের নাগরিক স্বাধীনতা এবং আইনের শাসন খর্ব করছে কি’না তা খতিয়ে দেখবে।’

এই আইনের ফলে হংকংকে যুক্তরাষ্ট্র প্রদত্ত বিশেষ বাণিজ্য মর্যাদা বজায় থাকছে এবং হংকংয়ে অহিংস বিক্ষোভ থেকে গ্রেফতার হওয়া ব্যক্তিদের যুক্তরাষ্ট্রে ভিসা পেতে কোন বাঁধা রইলো না।

আরও পড়ুন: লিটন হত্যা মামলায় সাবেক এমপিসহ ৭ জনের মৃত্যুদণ্ড

এদিকে বিলে স্বাক্ষর প্রসঙ্গে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন যে তিনি চীনের রাষ্ট্রপতি শি জিনপিং এবং হংকংয়ের জনগণের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে এই আইনটিতে স্বাক্ষর করেছেন।

অন্যদিকে এই আইন প্রণয়নের পর তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে চীন। দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, এই পদক্ষেপ হংকং বিষয়ে এবং চীনের অভ্যন্তরীণ ব্যাপারে মারাত্মক হস্তক্ষেপ। এটি আন্তর্জাতিক আইন ও আন্তর্জাতিক সম্পর্ক রক্ষার মৌলিক নিয়মের পরিপন্থী। এ সংক্রান্ত আইন পাস যুক্তরাষ্ট্রের একটি আধিপত্যবাদী পদক্ষেপ।

উল্লেখ্য, চলতি বছরের জুনে হংকংয়ে বিক্ষোভ চলাকালে এ বিলটি মার্কিন কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদে তোলা হয়। এরপর গত মাসে বড় ধরনের সমর্থনের মাধ্যমে প্রতিনিধি পরিষদে বিলটি অনুমোদিত হয়। চলতি মাসে মার্কিন সিনেটের সদস্যরাও বিলটিতে সর্বসম্মত সমর্থন দেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য