ইরাকের সরকারবিরোধী বিক্ষোভকারীরা দেশটির দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর নাজাফের ইরানি কনস্যুলেটে আগুন দিয়েছে।

ইরানি কনস্যুলেট ভবনে আগুন ছড়িয়ে পড়ার পর বিক্ষোভকারীরা ‘ইরাক থেকে বের হও ইরান’ শ্লোগান দেয় বলে বিবিসি জানিয়েছে।

গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিক্ষোভকারীরা ঢুকে পড়ার আগেই ইরানি কনস্যুলেটের কর্মীরা সরে যায়।

পুলিশ বিক্ষোভকারীদের কনস্যুলেট প্রাঙ্গণে আটকে রাখার চেষ্টা করে, কিন্তু তারা পুলিশের প্রতিরোধ ভেঙে কনস্যুলেট ভবনে ঢুকে পড়ে ভাংচুর চালায়, তারপর পুরো ভবনটিতে আগুন ধরিয়ে দেয়।

বুধবার রাতের এ ঘটনায় অন্তত ৫৭ জন পুলিশ আহত হয়েছে বলে কয়েকটি গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে।

এ ঘটনার কিছুক্ষণ পর কর্তৃপক্ষ শহরজুড়ে কারফিউ জারি করে বলে ইরাকি রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমের প্রতিবেদনের বরাতে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

এই নিয়ে চলতি মাসে ইরাকে ইরানের দ্বিতীয় আরেকটি কনস্যুলেটে হামলায় ঘটনা ঘটল। তিন সপ্তাহ আগে কারবালা শহরের ইরানি কনস্যুলেটেও হামলা হয়েছিল।

ইরাকের রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলো ও পার্লামেন্ট ইরান সমর্থিত রাজনৈতিক দলগুলো ও স্থানীয় প্রভাবশালী শিয়া মুসলিম মিলিশিয়া বাহিনীগুলোর নিয়ন্ত্রণে আছে।

ইরাকে ‘অস্থিরতা ছড়িয়ে দেওয়ার’ জন্য পশ্চিমা দেশগুলোকে দায়ী করেছে ইরান।

বুধবার রাজধানী বাগদাদেও বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে নিরাপত্তা বাহিনীর সংঘর্ষ হয়েছে। এখানে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে দুই জন নিহত হয়।

দুর্নীতি, বেকারত্ব, সরকারি সেবার নিম্নমান ইত্যাদি অভিযোগ থেকে সৃষ্ট অসন্তোষে অক্টোবরের প্রথমদিকে থেকে ইরাকে সরকারবিরোধী বিক্ষোভ শুরু হয়। বিক্ষোভ দমনে কর্তৃপক্ষের গৃহীত কঠোর পদক্ষেপের কারণে দুই মাসে অস্থিরতায় অন্তত ৩৪৪ জন নিহত হয়েছে।

বিক্ষোভকারীরা ইরানের বিরুদ্ধে ইরাকের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ ও সরকারের প্রতি সমর্থন দেওয়ার অভিযোগ তুলেছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য