রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলার দশম শ্রেণির সেই স্কুলছাত্রীকে অপহরণের ছয় মাস পর ভারতের একটি সেফহোম থেকে ফিরিয়ে আনা সম্ভব হয়েছে। এড্রা নামের একটি আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন আজ বুধবার সকাল ১১টায় ওই ছাত্রীকে তারাগঞ্জ থানা পুলিশের নিকট হস্তান্তর করেন। পুলিশ ছাত্রীর জবানবন্দি গ্রহণের জন্য রংপুরের আদালতে প্রেরণ করেছে।

এ সংক্রান্ত একটি খবর গত ২০ অক্টোবর দৈনিক ইত্তেফাকের সপ্তম পাতায় ‘অপহৃত স্কুল ছাত্রীকে ফিরিয়ে আনা যায়নি পাঁচ মাসেও’ শিরোনামে একটি খবর প্রকাশিত হলে তা সবার নজরে আসে।

তারাগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. জিন্নাত আলী জানান, ওই ছাত্রীকে দেশে ফেরত আনার জন্য স্বরাষ্ট্র ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগের পাশাপাশি বিভিন্ন আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠনের সহযোগিতা চাওয়ায় ব্রাজিলের এক ব্যক্তি পরিচালিত এড্রা নামের একটি আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন ভারতের হরিয়ানা রাজ্যের পানিপথ নামের একটি সেফ হোম থেকে উদ্ধার করে বিমানে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দেয়। এরপর এড্রা বাংলাদেশ হাউস অব হোম দিনাজপুরকে ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে গ্রহণ করতে বলেন।

তারা ওই ছাত্রীকে গ্রহণ করে আজ বুধবার থানায় হস্তান্তর করে। আমরা তার জবানবন্দি গ্রহণের জন্য আদালতে প্রেরণ করেছি। আদালতের অনুমতি পেলে তার স্বাস্থ্যসহ অন্যান্য পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হবে। থানার মামলা সূত্রে জানা গেছে, বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে গত বছরের ১৪ নভেম্বর একটি মাদ্রাসার দশম শ্রেণির ওই ছাত্রীকে রাব্বি হোসেন (২২) নামের এক যুবক ঢাকায় নিয়ে যায়। পরে চার মাস ঢাকায় বিভিন্ন স্থানে রাখার পর ওই ছাত্রীকে কৌশলে ভারতে পাচার করেন।

ওই ছাত্রী ভারত থেকে গত ২৫ মে তার বাবাকে মুঠোফোনে বিস্তারিত ঘটনা জানায়। সে জানায়, ভারতের পুলিশের হাতে সে ধরা পড়লে পুলিশ তাকে সেখানকার হরিয়ানা রাজ্যের পানিপথ নামের একটি সেফহোমে রেখেছে। সেখান থেকেই ফোন করেছে সেই ছাত্রী। এরপর ওই ছাত্রীর মা বাদী হয়ে মানবপাচার প্রতিরোধ আইনে রাব্বি হোসেন, মানিক হোসেনসহ পাঁচজনকে আসামি করে চলতি বছরের ১৯ জুন তারাগঞ্জ থানায় মামলা করেন। তারাগঞ্জ থানার পুলিশ বিষয়টি নিয়ে ভারতের পুলিশের সঙ্গে মুঠোফোনে কয়েকবার কথাও বলেছেন।

ওই ছাত্রী ভারতের একটি সেফ হোমে থাকার বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে তারা ওই ছাত্রীকে দেশে ফেরত আনার জন্য স্বরাষ্ট্র ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগের পাশাপাশি বিভিন্ন আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠনের সহযোগিতা চায়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য