কয়েক দশকের মধ্যে সবচেয়ে শক্তিশালী ভূমিকম্পে আলবেনিয়ায় অন্তত ২৫ জনের মৃতু হয়েছে। আহত হয়েছে ৬শ’র বেশি মানুষ। আরো কয়েকজন নিখোঁজ রয়েছে।

স্থানীয় সময় মঙ্গলবার ভোররাত ৪টার একটু আগে ৬ দশমিক ৪ মাত্রার এ ভূমিকম্পে রাজধানী তিরানাসহ দেশটির পশ্চিম ও উত্তরাঞ্চল প্রবলভাবে কেঁপে ওঠে, এতে বহু ভবন ভেঙে পড়ে বাসিন্দারা ধ্বংসস্তূপের নিচে চাপা পড়েন; জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

তিরানার ৩০ কিলোমিটার পশ্চিমে ভূমিকম্পটির উৎপত্তি বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ভূতাত্ত্বিক সংস্থা (ইউএসজিএস) । ভূমিকম্পটি পুরো বলকান অঞ্চলজুড়ে এবং আলবেনিয়া বরাবর আড্রিয়াটিক সাগরের অপর পারে ইতালির দক্ষিণাঞ্চলীয় পুইয়া অঞ্চলেও অনুভূত হয়।

মূল ভূমিকম্পের পর আরও ২৫০টি পরাঘাত হয়েছে বলে আলবেনিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রী ওন্তা জাস্কা জানিয়েছেন। এর মধ্যে দুটি পরাঘাত ৫ মাত্রার ছিল বলে জানিয়েছেন তিনি।

ভূমিকম্পটির উপকেন্দ্র পশ্চিমাঞ্চলীয় দুরেসে ছিল বলে এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন জাস্কা। দুরেস আলবেনিয়ার প্রধান বন্দর ও পর্যটন স্থান।

“প্রায় ৬০০ বাসিন্দা আহত হয়েছে, তাদের চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে,” বলেছেন তিনি।

দুরেসের ধসে পড়া ভবনগুলো থেকে ১৩ জনের মৃতদেহ বের করে আনা হয় এবং আরও ৪৫ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়। উত্তরাঞ্চলীয় থুমানে শহরে অ্যাপার্টমেন্ট ভবনের ধ্বংসস্তূপে ৫টি দেহ পাওয়া গেছে এবং কারবিন শহরে একজন ভবন থেকে লাফিয়ে পড়ে মারা গেছেন।

“দুরেস আর থুমানে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ধসে পড়া ভবনগুলোতে আটকা পড়াদের উদ্ধার ও রক্ষা করার কাজ চলছে,” বলেছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী জাস্কা।

আলবানিয়ার সংবাদমাধ্যমগুলোর খবর অনুযায়ী, আহতদের মধ্যে তিনশ’ জনের বেশি তিরানার বাসিন্দা, বাকিরা উপকূলীয় নগরী দুরেসের।

এক টুইটে আলবানিয়ার প্রধানমন্ত্রী এডি রামা বলেছেন,“আমাদের এখানে লোকজন হতাহত হয়েছেন।আমরা ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় সম্ভাব্য সব কিছু করছি।”

আলবানিয়ায় ভূমিকম্পের কয়েক ঘণ্টা পর ৫ দশমিক ৪ মাত্রার আরেকটি ভূমিকম্পে কেঁপে ওঠে বসনিয়া। রাজধানী সারায়েভো থেকে ৭৫ কিলোমিটার দক্ষিণে মোস্তার নগরীর কাছে ভূমিকম্পটির উপকেন্দ্র ছিল। তবে সেখানে কেউ হতাহত হয়েছে বলে খবর হয়নি।

আলবেনিয়ার ভূমিকম্প বিধ্বস্ত এলাকাগুলোতে উদ্ধারকাজ চালাচ্ছে দমকলকর্মী ও সেনা সদস্যরা। উদ্ধারকাজে নেমেছে রেডক্রসের কর্মীরাসহ পুলিশের বিশেষ বাহিনী।

উদ্ধারকাজে সহায়তার জন্য ইতালি, ফ্রান্স, রোমানিয়া, তুরস্ক, গ্রিস, ক্রোয়েশিয়া, মন্টিনেগ্রো, কসোভো ও সার্বিয়া ২০০ বিশেষ সেনা, যন্ত্রপাতি ও উদ্ধারকাজে প্রশিক্ষিত কুকুর পাঠিয়েছে বলে জাস্কা জানিয়েছেন।

বলকান অঞ্চল ভূমিকম্পপ্রবণ। মঙ্গলবারের ভূমিকম্পটিকে আলবেনিয়ায় কয়েকদশকের মধ্যে সবচেয়ে শক্তিশালী ভূমিকম্প বলে বর্ণনা করেছে কর্তৃপক্ষ। এর আগে ১৯৭৯ সালে আলবেনিয়ায় ৬ দশমিক ৯ মাত্রার ভূমিকম্পে ১৩৬ জন নিহত এবং ১ হাজার জন আহত হয়েছিল।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য