সংবাদ সম্মেলন “ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়ন মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ-আসুন এ অপরাধের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াই” এ শ্লোগানকে সামনে রেখে ২৫ নভেম্বর হতে ১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত নানান কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ ও বিশ্বমানবাধিকার দিবস পালন করবে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ দিনাজপুর জেলা শাখা।

২৫ নভেম্বর সোমবার দিনাজপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে “ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়ন মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ-আসুন এ অপরাধের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াই” এ শ্লোগানকে সামনে রেখে ২৫ নভেম্বর হতে ১০ ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ ও বিশ্বমানবাধিকার দিবস পালন উপলক্ষে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ দিনাজপুর জেলা শাখার উদ্যোগে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সংগঠনের সাধারন সম্পাদক ড. মারুফা বেগম।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয় মহিলা পরিষদ লক্ষ্য করছে যে, এ দেশে সকল শ্রেণী-পেশার নারী ও কন্যা শিশুরা ঘরে-বাইরে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে পারিবারিক সহিংসতা, ধর্ষণ, গণধর্ষণ, হত্যা, যৌতুকের জন্য নির্যাতন, যৌন নিপীড়ন ও বিভিন্ন শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন সহ্র করতে না পেরে আত্মহত্যা করতে বাধ্য হচ্ছে। এছাড়াও তারা বিভিন্ন ধরনের শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের কারনে নানা ধরনের শারীরিক ও মানসিক বৈকল্যের শিকার হচ্ছে।

নারী ও কন্যাশিশুর প্রতি সহিংসতা তাদেরকে পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্র অবদমিত, পদানত, অধঃস্তন করে রাখার জন্য একটি শক্তিশালি অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করা হয়। সহিংসতা নারীর ও কন্যাশিশুর মানবিক সত্তা, ব্যক্তিত্ব মনুষ্যত্ববোধ বিকশিত ও বিনষ্ট করা এবং তার স্বাধীন, স্বাভাবিক জীবন যাপনের সাথে চরম প্রতিবন্ধকতা তৈরী করছে, যা নারীকে পুনরায় ঘরের চারদেয়ালের মধ্যে বন্দি করার অপচেষ্টায় পরিনত হয়েছে।

এমতাবস্থায় শুধু আইন প্রণয়ন ও প্রয়োগ করেই নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধ করা যাবে না। এর জন্য চাই পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রের প্রচলিত পিতৃতান্ত্রিক দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন। চাই নারীর জন্য নিরাপদ পরিবেশ। নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধে ও নারী-পুরুষের সমতাপূর্ণ পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্র গঠনের জন্য তরুণদের ব্যক্তিমানুষ, সংগঠন, সরকার সকলকেই সমন্বিতভাবে এগিয়ে আসতে হবে এবং যেখানেই নারী ও কন্যাশিশুর প্রতি সহিংসতা সেখানেই প্রতিবাদ ও রুখে দাঁড়াতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয় সর্বত্র নারী ও কন্যাশিশু নির্যাতনের লোমহর্ষক, বর্বর, নৃশংস ঘটনা উদ্বেগজনক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। বাসে, ট্রাকে, মাইক্রোবাসে, নৌকায় যাত্রীকে গণধর্ষণের মতো ঘটনা ঘটছে। নভেম্বর’২০১৮ হতে নভেম্বর’২০১৯ এই সময়কালে দিনাজপুর জেলায় নারী ও শিশু ধর্ষণ মামলা হয়েছে ৮০টি, যৌতুকের জন্য নির্যাতিত মামলা হয়েছে ৬৩০টি, যৌতুকের জন্য হত্যা মামলা হয়েছে ১০টি, অপহরন মামলা হয়েছে১৫২টি এবং অন্যান্য মামলা হয়েছে ৫০টি। যা গত বছরের তুলনায় অনেক বেশী।

লিখিত বক্তব্যে আরো বলা হয়, আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ’১৯ সামনে রেখে মহিলা পরিষদ নারী নির্যাতন প্রতিরোধে নারী নির্যাতন বিরোধী সংস্কৃতি, পরিবারে সমাজে ও রাষ্ট্রে গড়ে তোলার জন্য পুরুষ সমাজ ও তরুণ-তরুণীদের ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহবান জানান। এ লক্ষ্যে দিনাজপুর মহিলা পরষিদ পর্যায়ক্রর্মে যৌন নিপীড়ন ও ধর্ষণের ঘটনা প্রতিরোধে তরুণীদের সাথে সচেতনতা বৃদ্ধিমূলক সভা, কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের সাথে মত বিনিময় সভা, যৌন নিপীড়ন ও ধর্ষণের ঘটনা প্রতিরোধ ও দ্রুত বিচারের দাবীতে প্রশাসনকে স্মারকলিপি প্রদান, প্রতিবাদ সমাবেশ, র‌্যালী, আলোচনা সভাসহ অন্যান্য কর্মসূচী পালন করবে।

সংবাদ সম্মেলনের উপস্থিত ছিলেন দিনাজপুর মহিলা পরিষদের সহ-সভাপতি মিনতি গোষ, অর্চনা অধিকারী, নুরুননাহার ইরা, সহ-সাধারন সম্পাদক মনোয়ারা সানু, লিগ্যাল এইড সম্পাদক জিন্নুরাইন পারু, আন্দোলন সম্পাদক গৌরী চক্রবর্তী, সাংগঠনিক সম্পাদক রুবিনা আকতার প্রমুখ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য