কুড়িগ্রামের রাজারহাটে রাতের অন্ধকারে দূর্বৃত্তরা একটি মন্দিরের শিতলী,মহাদেব ও হরি মূর্তি ভাংচুর করেছে। এ ঘটনাটি ঘটেছে, রোববার গভীর রাতে উপজেলার পাঙ্গা-বড়বাড়ী সড়কের পথিমধ্যে শিয়র মোড় পাটিগড়াটারী কালি ও দূর্গা মন্দিরে। এ ঘটনায় রাজারহাট থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে করেছে। তবে এ রিপোর্ট সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত থানায় কোন মামলা দায়ের হয়নি বলে পুলিশ জানিয়েছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানান, দীর্ঘদিন ধরে ওই মন্দিরের ভিতরে মহাদেব শিতলী ও হরি মূর্তি দিয়ে পূজা করেন সনাতন ধর্মাবলম্বীগণ। কিন্তু ১৫ নভেম্বর সোমবার দুপুরে ওই মন্দিরে পূজা করতে গিয়ে পূজারীরা মূর্তিগুলো খন্ডবিখন্ড অবস্থায় দেখতে পান। পরে তারা এলাকার লোকজনকে বিষয়টি জানালে এলাকাবাসীরা মন্দিরে গিয়ে ভাঙ্গা মূর্তিগুলো পড়ে থাকতে দেখেন।

খবর পেয়ে রাজারহাট থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই মন্দিরের আলামত সংগ্রহ করেন। মন্দিরে সভাপতি অশ্বিনী কুমার রায়সহ এলাকাবাসীরা ধারনা করেন, ২৪নভেম্বর রোববার রাতে যে কোন সময় দূর্বৃত্তরা ওই মন্দিরে প্রবেশ করে মহাদেব, শিতলী ও হরি মূর্তিগুলো ভেঙ্গে ফেলে চলে যায়। এ ব্যাপারে ওই মন্দিরের সাধারণ সম্পাদক রতন কুমার রায় বলেন, মন্দির নিয়ে কারো সাথে কোন বিরোধ নেই।

কি কারণে প্রতিমাগুলো ভেঙ্গে দেয়া হয়েছে তা আমার বোধগম্য নয়। রাজারহাট উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি রবীন্দ্রনাথ কর্মকার জানান, বিষয়টি আমি জেনেছি, তবে এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোন তথ্য উদঘাটন করা যায়নি। যারাই এ ঘটনা ঘটাক না কেন তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া দরকার।

২৫ নভেম্বর সোমবার সন্ধ্যায় রাজারহাট থানার কর্মকর্তা ইনচার্জ কৃষ্ণ কুমার সরকার বলেন, ওই মন্দিরে এসে লোকজনের সঙ্গে কথা বলছি। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ ছাড়া মূর্তি ভাঙচুর কারীরা সমাজের ভাল মানুষ নয়। তাদের গ্রেফতারের জন্য পুলিশী অভিযান অব্যাহত রয়েছে। উল্লেখ্য, সম্প্রতি রাজারহাট- লালমনিরহাট সীমান্তবর্তী ঐতিহ্যবাহী সিন্দুরমতী মন্দিরে রাতের অন্ধকারে প্রতিমা ও ভেন্ডিলেটর ভেঙ্গে ফেলে দূর্বৃত্তরা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য