দক্ষিণাঞ্চলীয় ইরাকি শহর নাসিরিয়ায় নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে সরকারবিরোধী পাঁচ প্রতিবাদকারী নিহত হয়েছেন।

শনিবার রাতে বিক্ষোভকারীরা শহরটির তিনটি গুরুত্বপূর্ণ সেতুর কাছে জড়ো হওয়ার পর নিরাপত্তা বাহিনীর কাঁদুনে গ্যাস ক্যানিস্টার ও তাজা গুলি বর্ষণে নিহত হন তিন বিক্ষোভকারী। আহত হন আরো ৫০ বিক্ষোভকারী।

রোববার বসরার কাছে উম কাসর উপসাগরীয় বন্দর এলাকায় নিরাপত্তা বাহিনী বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে গুলি চালালে নিহত হয় আরো দুইজন। আহত হয় ৭০ জন। পুলিশ ও চিকিৎসা কর্মীরা একথা জানিয়েছে।

গত ১ অক্টোবর থেকে কর্মসংস্থান সংকট দূর করা, সরকারের দুর্নীতি বন্ধসহ সরকারি সেবার মান বাড়ানোর দাবিতে ইরাকের রাজধানী বাগদাদসহ বিভিন্ন শহরে সরকারবিরোধী বিক্ষোভ শুরু হয়। তারপর থেকে বাগদাদসহ কয়েকটি শহরে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে প্রতিবাদকারীদের সংঘর্ষে তিন শতাধিক লোক নিহত হয়েছে।

২০০৩ সালে শাসক সাদ্দাম হোসেনের পতনের পর থেকে ইরাকে এটিই সরকারবিরোধী সবচেয়ে বড় প্রতিবাদ। প্রতিবাদ চলাকালে নিরস্ত্র বিক্ষোভকারীদের ওপর নিরাপত্তা বাহিনীর গুলি, কাঁদুনে গ্যাস ও স্টান গ্রেনেডের ব্যবহারে অস্থিরতার আগুন আরও তীব্র হয়ে উঠেছে।

এ পরিস্থিতি শান্ত করতে শুক্রবার ইরাকের শীর্ষ শিয়া ধর্মগুরু আয়াতুল্লাহ আলি সিস্তানি দ্রুত নির্বাচনী আইন সংস্কারের ডাক দিয়েছেন। নির্বাচন কমিশন ও নির্বাচনী আইনের সংস্কারই দেশকে এ ঘোরতর সংকট থেকে বের করে আনতে পারে বলে মনে করেছেন তিনি

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য