কানাডার অন্যতম প্রধান দল লিবারেল পার্টির প্রধান জাস্টিন ট্রুডো ২০ নভেম্বর দ্বিতীয় বারের মতো সরকার গঠন করে মন্ত্রিসভার ঘোষণা দিলেন। রাজধানী ওটোয়ায় গভর্নর জেনারেল জুলি পায়েত মন্ত্রিদের শপথ গ্রহণ করান। পরে মন্ত্রীদের দপ্তর বণ্টন করা হয়।

জানা গেছে, ৩৭ সদস্য বিশিষ্ট নব গঠিত মন্ত্রিসভার ৫০ শতাংশই নারীমন্ত্রী। গত বারের মন্ত্রিসভায় তা-ই ছিলো। উক্ত মন্ত্রিসভার সিংহভাগ হলেন অন্টারিও ও কিউবেকের সংসদ সদস্য, ব্রিটিশ কলম্বিয়া থেকে চারজন, ম্যানিটোবা থেকে একজন এবং আটলান্টিক প্রদেশের প্রত্যেকটির একজন।

বৃহস্পতিবার বিকেলে অটোয়া সংসদ ভবনে মন্ত্রিসভার প্রথম বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে আর ৪৩তম সংসদ অধিবেশন শুরু আগামী ৪ ডিসেম্বর।

সদ্য গঠিত মন্ত্রিসভার প্রধান আলোচ্য বিষয় ছিলো- আলবার্টায় জন্মগ্রহণকারী ক্রাইস্টিয়া ফ্রিল্যান্ডকে উপ-প্রধানমন্ত্রী করা। সেই সঙ্গে তিনি আন্তঃসরকারী বিষয়ক মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করবেন। এদিকে টরন্টো স্কার্বো সাউথ-ওয়েস্ট বাঙালি এলাকা থেকে নির্বাচিত বিল ব্লেয়ার দ্বিতীয় বাবের মতো জন নিরাপত্তা এবং জরুরি প্রস্তুতি বিষয়ক মন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত ১৫ অক্টোবর কানাডার ৪৩তম সাধারণ নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে দ্বিতীয়বারের মতো সরকার গঠন করলেন জাস্টিন ট্রুডোর লিবারেল পার্টি। নির্বাচনে ১৫৬টি সিট পেয়েছে লিবারেল পার্টি। ফলে লিবারেলকে এবার ‘সংখ্যালঘু সরকার’ গঠন করতে হলো। কারণ কানাডার হাউজ অব কমন্স সংসদের মোট আসন সংখ্যা ৩৩৮টি। এককভাবে কোনো সরকার গঠন করলে প্রয়োজন ১৭২টি আসনের। আর মাত্র ১২টি সিট পেলে একক সংখ্যাগরিষ্ঠ সরকার গঠন করতে পারতো।

এবারের নির্বাচনে মোট ৬টি রাজনৈতিক দল অংশগ্রহণ করে। জাস্টিন মন্ট্রিয়লে তার নির্বাচনী এলাকা পাপিন্যুতে নিজের ভোট দেন। নির্বাচনে লিবারেল পার্টি পেয়েছে ১৫৬ টি আসন, কনজারভেটিভ পার্টি ১২২ টি, কুবেকুয়া পার্টি ৩২টি, নিউ ডেমোক্রেটিক পার্টি ২৪ টি, গ্রিন পার্টি তিনটি এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী একটি আসনে জয় লাভ করেছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য