মো: ইউসুফ আলী, আটোয়ারী পঞ্চগড়ঃ পঞ্চগড়ের আটোয়ারীতে লাগামহীনভাবে পিঁয়াজের দাম ২০/-টাকা থেকে ২৪০/- টাকা পর্যন্ত বৃদ্ধি পায়। বেশ কিছুদিন হতে ক্রেতারা পিঁয়াজ নিয়ে অস্থিরতায় দিন কাটছে। পিঁয়াজের দাম বর্তমানে কমতে শুরু করেছে।

১৯ নভেম্বর বাজারে ১০০/- টাকা থেকে ১২০/-টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। পিঁয়াজের অস্থিরতার রেশ কাটতে না কাটতে হঠাৎ ১৯ নভেম্বর সকালে হাট বাজারের বিভিন্ন দোকানে ব্যবসায়ীরা প্রতি কেজি খোলা লবণ ১৫/- টাকার স্থলে ৫০/- টাকা এবং প্যাকেটের ২০/- টাকা কেজি দরের লবণ ৮০/- টাকা থেকে ১০০/- টাকা দরে বিক্রি করতে থাকে। উপজেলায় সকাল থেকে শুরু হয়েছে লবণ কেনার প্রতিযোগিতা। সাধারণ ক্রেতারা প্রতিজন ২ কেজি থেকে ৫/১০ কেজি করে লবণ কিনেছেন।

লবণ কেনাকে কেন্দ্র করে সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত লবণ বিক্রির দোকানগুলোতে ছিল উপচে পড়া ভিড়। মঙ্গলবার হঠাৎ লবনের দাম বাড়বে এমন গুজব ছড়িয়ে পড়ে পুরো এলাকায়। গ্রামের মানুষগুলো ছুটে আসা শুরু করে লবণ কেনার জন্য। এই সুযোগে ব্যবসায়ীরাও পেঁয়াজের মত লবণের দাম বৃদ্ধি করে। ২০/- টাকার লবণ ঘন্টার ব্যবধানে দাম বেড়ে দাড়ায় ৮০/- টাকা কেজিতে।

তোড়িয়া ইউনিয়নের যুব লীগের সভাপতি জিয়াউর রহমান জানান, গুজবকে কাজে লাগিয়ে সকাল থেকেই তোড়িয়া বাজারের আনছারুল ও মকলেছ(চাচা) লবণের দাম বৃদ্ধি করে। এদিকে ফকিরগঞ্জ বাজারের তোহিদুল, রহিম, ফারাজ উদ্দীনের দোকান সহ উপজেলার বিভিন্ন বাজারের ব্যবসায়ীরা লবণের দাম বৃদ্ধি শুরু করে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, এলাকার সাধারণ মানুষদের ২ কেজি থেকে ১০ কেজি পর্যন্ত লবণ ক্রয় করতে দেখা গেছে।

অনেক অসাধু ব্যবসায়ী লবণ মজুদের অজুহাত দেখিয়ে চড়ামূল্যে বিক্রিও করেছেন। লবণ ব্যবসায়ীরা জানান, সকাল থেকে লবণের চাহিদা ছিল ব্যাপক। ব্যবসায়ীক জীবনে কোন দিন এমন লবণ বিক্রি হয়নি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন ব্যবসায়ী বলেন, লবণ সঙ্কট হবে এমন একটা গুজব ছড়ানোর ফলে এ প্রভাব পড়েছে। এদিকে পুলিশ আসছে খবর ছড়িয়ে পড়লে মুহুর্তেই লবণ বিক্রেতারা দোকান বন্ধ করে সটকে পড়ে।

এব্যাপরে আটোয়ারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (অতি: দা:) সৈয়দ মাহমুদ হাসান বলেন, উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাইক বের করা হয়েছে। গুজবে কান না দেয়ার জন্য ব্যাপক মাইকিং করা হচ্ছে। বিভিন্ন হাট বাজারে ইতোমধ্যে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। তিনি বলেন, পেঁয়াজের মত লবণের দাম বেড়েছে এমন গুজব ছড়ালে প্রশাসনিকভাকে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আটোয়ারী থানার ওসি মোঃ ইজার উদ্দীন বলেন, লবনের বিষয়ে অনেকেই ফোন করেছেন। আসলে এটি একটি নিছক গুজব। কেহ বাজার মূল্যের চেয়ে বেশী দামে লবণ বিক্রি করলে তাকে আইনের আওতায় আসতে হবে। বিকেলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বিভিন্ন হাট বাজার মনিটরিং করেছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য