দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনভর ২২০ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রি করে যাচ্ছিলেন অসাধু ব্যবসায়ীরা। ক্রেতাদের দীর্ঘশ্বাস চোখেই পড়ছিল না তাদের।

কিন্তু সোমবার বিকালে দিনাজপুর জেলার বীরগঞ্জ উপজেলার গোলাপগঞ্জ হাটে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ রমিজ আলম বাজারে ভোক্তা অধিকার অনুসারে দ্রব্যমূল্য তদারিক করার সময় মুহুর্তেই বর্তমান বাজারে আগুনের মত দাম পিয়াঁজ ২২০ টাকা থেকে ১৬০ টাকা দরে প্রতি কেজি পেঁয়াজ বিক্রি শুরু করলেন কাঁচামাল ব্যবসায়ীরা।

বাজারে ব্যবসায়ীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, দেশে পেঁয়াজের পর্যাপ্ত মজুত রয়েছে। তাই কৃত্রিম সংকট তৈরি না করে নির্ধারিত মূল্যে পেঁয়াজ বিক্রয় করুন। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণে বাজার মনিটরিং অব্যাহত থাকবে।

এদিকে স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, সারাদিন ব্যবসায়ীরা ২২০ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বেচলেও ম্যাজিষ্ট্রেট আসার পর সঙ্গে সঙ্গে প্রায় সব ব্যবসায়ী দাম ১৬০ টাকায় নামিয়ে ফেলেন।

ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা কালে উপজেলা ভূমি অফিসের নাজির-কাম-ক্যাশিয়ার মোঃ রুবেল ইসলাম, বীরগঞ্জ থানা পুলিশের কলস্টেবল সাইফুল, নুরুল, মিলন উপস্থিত ছিলেন।

নবাবগঞ্জঃ সোমবার বিকেলে দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ সহকারি কমিশনার (ভূমি) ভ্র্যাম্যমান আদালত পরিচালনা করে পিয়াজ ও চালের সরকারি ভাবে নির্ধারিত বাজার দর নির্ধারন করে দিলেন। উপজেলার রামপুর বাজার ও দাউদপুর বাজারে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আল মামুন বলেন পিয়াজ পাইকারী কেজি প্রতি ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা দরে এবং খুচরা কেজি প্রতি ১৬০ থেকে ১৭০ টাকা , নতুন মোটা চাল কেজি প্রতি ২৫ থেকে ২৬ টাকা দরে এবং পুরাতন চাল কেজি প্রতি ২৪ থেকে ২৫টাকা দরে বিক্রি করা নির্দেশ দেন তিনি । বাজারে দর নির্ধারন করায় সাধারন ক্রেতারা স্বস্থি প্রকাশ করেছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য