দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুর সদর উপজেলার আত্রাই নদীর বালুমহাল থেকে নিয়মনীতি উপেক্ষা করে ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। স্থানীয় বালু ব্যবসায়ী বালুমহাল ইজারা নিয়ে এ উত্তোলন করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এতে ঝুকিতে পড়েছে নদীরক্ষা বাঁধ ও কাউগাঁ রেল ব্রীজ।

এলাকাবাসীর অভিযোগে জানা গেছে, ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করার ফলে নদীর ভূগভ্যস্থ দেবে যাওয়ার সম্ভবনা রয়েছে। কাউগাঁ রেল ব্রীজের পাশেই ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করায় ঝুকিতে রয়েছে ব্রীজটি। এছাড়াও কয়েক বছরে নদী রক্ষা বেরী বাঁধের ব্লক ভেঙ্গে নদীতে বিলীন হয়ে গেছে বলে জানান এলাকাবাসী।

আত্রাই নদীতে সরেজমিন দেখা গেছে, ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলনে নদীর পশ্চিমতীরে বেরী বাঁধের ব্লক নদীতে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। গ্রাম রক্ষা বাঁধ কেটে ড্রেজার মেশিনের লাইন তৈরী করেছেন ইজারাদার। এতে বাঁধের অনেক জায়গায় ভেঙ্গে যাওয়ায় গ্রামবাসীদের চলাচল অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

এছাড়াও কাউগাঁ রেল ব্রীজের প্রায় ১’শ মিটারের কাছে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে বালু উত্তোলন করছে বালুমহালের ইজারাদার। আর কিছুদিন ড্রেজার মেশিন বসিয়ে এ বালু উত্তোলন করলে রেল ব্রীজটি খুবই ক্ষতির আশংকায় রয়েছে বলে দাবী করেছেন এলাকাবাসী। সরকারি নিয়মের তোয়াক্কা না করে বালু বালুমহালে এ নৈরাজ্য দেখেও কেউ কিছু বলছে না। বালু উত্তোলনকারী এলাকায় খুবই প্রভাব খাটিয়ে সব ম্যানেজ করে এসব করছে।

এছাড়া যেখানে জেলা প্রশাসনের কার্যাদেশের ১১নং শর্তে আইএসও-১৯৭৬ অনুযায়ী নৌ বন্দর সীমার মধ্যে বালু উত্তোলন ও ড্রেজিং এর কার্যক্রম চালানোর জন্য ড্রেজার দ্বারা নৌ পথে নৌ চলাচল বিঘিœত হইলে বা অননুমোদিত ড্রেজার বা বিধি বহির্ভূতভাবে ড্রেজার মেশিন মোতায়েন করিলে নৌ আইন ভঙ্গের কারণে সরকার কর্তৃক ক্ষমতা প্রদত্ত কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা গ্রহন করবেন।

যেখানে বালু উত্তোলন করতে হলে কোন প্রকার ড্রেজার মেশিন ব্যবহার করা যাবে না, ব্যবহার করলে ইজারাকারীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করতে পরবেন মর্মে নির্দেশনা থাকলেও সেটাকে তোয়াক্কা না করেই ঠিকাদার ড্রেজার মেশিন দিয়ে দিব্বি বালু উত্তোলন করে বিক্রি করছেন।

আত্রাই নদীতে বালুমহাল ইজারাদার মো. আলতাফ হোসেন বলেন, প্রায় চার বছর ধরে জেলা প্রশাসকের অনুমতি নিয়েই ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করছি। সরকারি নিয়মে এগুলো বেচাকেনাও হচ্ছে। তবে রেল ব্রীজের পাশ থেকে ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন ও বেরী বাঁধের ব্লক নদীতে বিলীন বিষয়টি তিনি এড়িয়ে যান।

দিনাজপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আবু সালেহ মো. মাহফুজুল আলম বলেন, আত্রাই নদীতে ড্রেজার মেশিন ব্যবহারের বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে এ ব্যাপারে খোঁজ নিয়ে বিধি অনুযায়ী ইজারাদারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য