অপ্রত্যাশীতভাবে পেট্রলের দাম বৃদ্ধি ও রেশনিংয়ের সরকারি ঘোষণায় ক্ষুব্ধ হয়ে ইরানিরা রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ জানাচ্ছে বলে দেশটির রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে।

শুক্রবার দেশটিতে পেট্রলের মূল্য অন্তত ৫০ শতাংশ বাড়ানো হয়েছে বলে বিবিসি জানিয়েছে।

মার্কিন নিষেধাজ্ঞায় ক্ষতিগ্রস্ত অর্থনীতি ওপর চাপ কমানোর লক্ষে পেট্রলে দেওয়া ভর্তুকি হ্রাস করেছে ইরানের কর্তৃপক্ষ। এতে পেট্রলের দাম বৃদ্ধি পেলে ও সরকার নতুন রেশনিংয়ের ঘোষণা দেওয়ায় ইরানজুড়ে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে।

শুক্রবার রাতে ইরানের মধ্যাঞ্চলীয় শহর সিরজানে ‘তীব্র’ প্রতিবাদ শুরু হয় বলে দেশটির রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা আইআরএনএ জানিয়েছে।

প্রতিবাদকারীরা শহরের একটি জ্বালানি গুদামে হামলায় চালিয়ে সেটিতে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছে বলে বার্তা সংস্থাটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

এখানে এক ব্যক্তি নিহত ও বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন, সিরজানের গভর্নরের উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি এমনটি জানিয়েছে বলে আধা-স্বায়ত্তশাসিত বার্তা সংস্থা আইএসএনএ জানিয়েছে।

সিরজানের পাশাপাশি মাশহাদ, বিরজানদ, আহভাজ, গাচসারান, আবাদান, খোরামশহর, মাহশহর, শিরাজ ও বন্দর আব্বাসেও প্রতিবাদ হয়েছে বলে সংস্থাটি জানিয়েছে।

ইরানের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর মাশহাদে বহু ক্ষুব্ধ বিক্ষোভকারী তাদের গাড়িগুলো এলোপাতাড়ি ফেলে রেখে সড়ক অবরোধ করে।

বিবিসি জানিয়েছে, অনলাইনে পোস্ট করা ভিডিওতে মোটরগাড়ির চালকদের রাজধানী তেহরানের ইমাম আলী মহাসড়ক বলে কথিত একটি সড়কে গাড়ি চলাচল বন্ধ করে দিয়ে পুলিশকে তাদের সঙ্গে যোগ দেওয়ার শ্লোগান তুলতে দেখা গেছে।

আরেকটি ভিডিও ক্লিপে শীতের প্রথম ভারী তুষারপাতের মধ্যে তেহরান-কারাজ সড়কপথে অবরোধ বসাতে দেখা গেছে।

নতুন নির্দেশনা অনুযায়ী, একজন গাড়িচালক মাসে লিটার প্রতি ১৫ হাজার রিয়াল দরে সর্বোচ্চ ৬০ লিটার পেট্রল কিনতে পারবেন, এরপর অতিরিক্ত প্রতি লিটারের জন্য ৩০ হাজার রিয়াল দিতে হবে।

এর আগে চালকরা লিটার প্রতি ১০ হাজার রিয়াল দরে সর্বোচ্চ ২৫০ লিটার পেট্রল কিনতে পারতেন।

পেট্রলে দেওয়া ভর্তুকি হ্রাসে যে রাজস্ব আয় হবে তা স্বল্প আয়ের পরিবারগুলোকে নগদ অর্থ সহায়তা দিতে ব্যবহার করা হবে বলে সরকার জানিয়েছে।

ইরানের পরিকল্পনা ও বাজেট সংস্থার প্রধান মোহাম্মদ বাকের নোবাখত্ জানিয়েছেন, এই মূল্য বৃদ্ধির কারণে চলতি মাস থেকে এক কোটি ৮০ লাখ পরিবার অতিরিক্ত নগদ ভাতা পাবে।

নতুন মূল্যমান নির্ধারণের কারণে বার্ষিক ৩০০ ট্রিলিয়ন রিয়াল আয় হবে, এমন প্রত্যাশা করা হচ্ছে বলে রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে বলেছেন তিনি।

শনিবার ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি বলেছেন, “বর্তমানে ৭৫ শতাংশ ইরানি চাপের মধ্যে আছে, পেট্রলের মূল্য বৃদ্ধিতে অতিরিক্ত যে রাজস্ব আসবে তা এই লোকগুলোই পাবে, সরকারি কোষাগারে যাবে না।”

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য