কুয়েতের মধ্যস্থতায় কাতারের সঙ্গে সৌদি আরবসহ উপসাগরীয় কয়েকটি দেশের চলমান বিরোধ নিরসনের ইঙ্গিত পাওয়া গেছে। কুয়েতের দৈনিক পত্রিকা আল-কাবাস জানিয়েছে, কুয়েতি আমির সৌদি আরবের বাদশাহকে সংকটের ইতি টানার জন্য একটি চিঠি পাঠিয়েছেন।

২০১৭ সালের ৫ জুন সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, বাহরাইন ও মিসর কাতারের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে। এতে কাতার জল, স্থল ও আকাশপথে অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে। সন্ত্রাসবাদে সহযোগিতার অভিযোগে সৌদি নেতৃত্বের অভিযোগে এ অবরোধ আরোপ করা হয় কাতারের বিরুদ্ধে। যদিও কাতার এ অভিযোগ অস্বীকার করেছে। যুক্তরাষ্ট্র, কাতার, যুক্তরাজ্য ও তুরস্কের মধ্যস্থতাও সংকট মীমাংসার দিকে গড়ায়নি।

ফরাসি বার্তা সংস্থার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কাতারের একটি প্রতিনিধি দল কয়েক দিনের মধ্যে সৌদি আরবে সরকারি সফরে যেতে পারেন।

কাতারের সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা সম্প্রতি এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, দোহায় অনুষ্ঠিতব্য গাল্ফ কাপ টুর্নামেন্টে সৌদি আরব, বাহরাইন ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের অ্যাথলেটরা অংশগ্রহণ করবে।

ব্লুমবার্গের প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, চলমান উপসাগরীয় এই সংকটের সমাধান নির্ভর করছে সৌদি-কাতার সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণের ওপর। সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে, সৌদি-কাতার সম্পর্ক স্বাভাবিক হলে বাহরাইন ও আমিরাত অবরোধ প্রত্যাহার করবে।

এতে আরও বলা হয়েছে, কাতারের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ডক্টর খালিদ বিন মোহাম্মদ আল আতিয়েহ ঘোষণা দিয়েছেন, তারা নিঃশর্ত আলোচনার জন্য প্রস্তুত। আর সৌদি আরবের এক কর্মকর্তা বলেছেন, উপসাগরীয় প্রতিবেশীদের সঙ্গে উত্তেজনা কমাতে ইতোমধ্যেই বেশ কয়েকটি পদক্ষেপ নিয়েছে দোহা। এসব পদক্ষেপের মধ্যে কাতারি কর্তৃপক্ষের ‘সন্ত্রাসবিরোধী’ একটি আইনও রয়েছে। সূত্র: মিডলইস্ট মনিটর।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য