দিনাজপুর সংবাদাতাঃ শহরের বাহাদুর বাজারে বিকেল থেকেই পেঁয়াজ বিক্রী বন্ধ। ছোটখাটো খুচরা যে সব দোকানে পোঁয়াজ বিক্রী হচ্ছে সেখানেও আধা কেজি পেঁয়াজ একশ টাকায় বিক্রী হচ্ছে। পাইকারি বিক্রেতারা বলেন হিলি স্থল বন্দরে চেঁয়াজের মুল্য বেজে গেছে নতুন দাম না পাওয়ায় এখন পাইকারি পেঁয়াজ বিক্রী বন্ধ। আগামী কাল থেকে নতুন রেটে পেঁয়াজ বিক্রী হবে, দাম বাড়তেও পারে আবার কমতেও পারে।

এদিকে হিলি স্থলবন্দরে আবারও বেড়েছে পেঁয়াজের দাম। এক লাফে কেজিপ্রতি ৪০ থেকে ৫০ টাকা বেড়েছে। যে পেঁয়াজ গত বুধবার বিক্রি হয়েছে প্রতিকেজি ১৩০ থেকে থেকে ১৪০ টাকা। আজ বৃহস্পতিবার সেই পাইকারি বাজারে পেঁয়াজ প্রতিকেজি প্রকারভেদে বিক্রি হচ্ছে ১৭০ থেকে ১৮০ টাকা দরে।

পেঁয়াজ আমদানিকারকরা জানান, হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে পিয়াজ আমদানি বন্ধ থাকার কারণেই লাগামহীন ভাবে দাম বাড়ছে।

জেলার বিভিন্ন বাজারের ব্যবসায়ীদের দাবি, বাজারে ভারতীয় পেঁয়াজ নেই। দেশি পেঁয়াজের মজুদও প্রায় শেষ। তার ওপর ঘূর্ণিঝড়ে পেঁয়াজ পরিবহনে বিঘ্ন ঘটায় বাজারে সরবরাহ কমে গেছে। তাই দাম বেড়েছে। খুচরা বাজারে কেজি প্রতি ২০০ টাকা পেঁয়াজ বিক্রী হচ্ছে।

হিলিতে পেঁয়াজ কিনতে আসা পাইকাররা জানান, পেঁয়াজের বাজার নিয়ন্ত্রণ না থাকায় বিপাকে পড়েছেন তারা। অনেকেই দাম বেশির কারণে পিয়াজ কিনতে পারছে না।

তবে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ঘূর্ণিঝড়ের পর এক লাফে দাম বেড়ে যাওয়াটা ব্যবসায়ীদের নতুন আরেকটি অজুহাত মাত্র। যথাযথ নজরদারির অভাবে প্রশ্রয় পাচ্ছেন অসাধু ব্যবসায়ীরা। ধারণা করা হচ্ছে এ মৌসুমে ভোক্তাদের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে আসছে না পেঁয়াজের দাম।

 

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য