পশ্চিমবঙ্গে এক বাংলাদেশি ব্যবসায়ীকে একদল লোক অপহরণ করে ৫০ লাখ রুপি মুক্তিপণ আদায় করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ ঘটনায় গত রোববার কলকাতার এন্টালি থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে বলে এক জ্যেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তার বরাত দিয়ে বুধবার ভারতের রাষ্ট্রায়ত্ত সংবাদ সংস্থা পিটিআই জানিয়েছে।

ওই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, বশির মিয়া নামে বাংলাদেশের ওই ব্যবসায়ীকে পরিচিত একদল লোক উত্তর চব্বিশ পরগণা জেলার হাবড়া এলাকার একটি অপরিচিত স্থানে জোর করে আটকে রেখে তার কাছ থেকে ৫০ লাখ রুপি আদায় করে বলে এজাহারে বলা হয়েছে।

‘স্ত্রীর জন্য কিছু গহনা কিনতে’ ডলার নিয়ে গত সপ্তাহে কলকাতায় পৌঁছার পর ব্যবসায়িক প্রয়োজনে শনিবার শিয়ালদা এলাকার একটি শপিং মলে কয়েকজন লোকের সঙ্গে দেখা করেন বশির।

সেখানে তারা সবাই মিলে দুপুরের খাবার সারেন। তারপর তারা সবাই ব্যবসায়িক কাজে হাবড়ায় একজনের সঙ্গে দেখা করতে যেতে ট্রেনে উঠেন।

এজাহারে বলা হয়, বশির হাবড়ায় পৌঁছার পর আসামিরা তাকে অপরিচিত জায়গায় নিয়ে গিয়ে তার হাত বেঁধে ফেলে ও চোখ ঢেকে দেয়।

তাদের চাপে বশির বাংলাদেশে বাবার কাছে ফোন করলে মুক্তিপণের জন্য তিনি প্রায় ছয় লাখ রুপি যোগার করে দেন। এরসঙ্গে তার কাছে থাকা ৪৪ লাখ রুপির বিদেশি মুদ্রাও অপহরণকারীরা ছিনিয়ে নিয়ে যায় বলে বশিরের অভিযোগ।

পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, বশিরকে বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত পার করানোর জন্য তারা দুজন দালালও ঠিক করে। কিন্তু বশির বিএসএফ সদস্যদের কাছে ঘটনা প্রকাশের হুমকি দিলে দুই দালাল তাকে ছেড়ে দেয়।

“এঘটনায় আমরা তদন্ত শুরু করেছি। শপিং মলে যেখানে তারা খাওয়া-দাওয়া করেন, তার ফুটেজ যাচাই করা হচ্ছে। উত্তর চব্বিশ পরগনা পুলিশের সঙ্গেও আমাদের যোগাযোগ হয়েছে।”

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য