মাসুদ রানা পলক,ঠাকুরগাঁওঃ ঠাকুরগাঁও জেলার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলায় যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূকে মারপিটের অভিযোগ পাওয়া গেছে স্বামী ফারাজুল ইসলামের বিরুদ্ধে। স্বামীর মারপিটে আহত গৃহবধূ বর্তমানে ৭ মাসের বাচ্চাসহ বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

সোমবার (১১ নভেম্বর) রাত ১১টায় হাসপাতালে মারপিটের শিকার গৃহবধূ এ অভিযোগ করেন। এর আগে একই দিন বিকালে জেলার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার বড়বাড়ী ইউনিয়নের কাশিডাঙ্গা গ্রামে মারপিটের ঘটনা ঘটে। গৃহবধূ সম্পা আক্তার দুওসুও ইউনিয়নের সনগাঁও গ্রামের ইসমাইল হোসেনের কন্যা ও কাশিডাঙ্গা গ্রামের ফারাজুল ইসলামের স্ত্রী।

গৃহবধূ সম্পা আক্তারের অভিযোগ পেটে বাচ্চা থাকাকালীন থেকেই বিভিন্ন ধরনের অত্যাচার করে আসছেন তার স্বামী ফারাজুল ইসলাম। সিজার করে বাচ্চা হওয়ার পর স্বামীর বাড়িতে রাখেনি তার শ্বশুরবাড়ির লোকজন। দীর্ঘ ৭ মাস যাবত বাবার বাড়িতে তিনি ছিলেন। তিনি বলেন, সোমবার সোমবার বিকালে ৭ মাস পর আমার নানি ও ছোটবোনকে সাথে নিয়ে স্বামীর বাড়িতে গিয়ে বারান্দায় ওঠার সাথে সাথে মারপিট শুরু করে আমার স্বামী। এ সময় বাচ্চাটির ঠোটে আঘাত লেগেছে।

গৃহবধূর বাবা ইসমাইল হোসেন জানান, অতিকষ্টে গত বছর মেয়েকে সাড়ে চার লাখ টাকার উপরে যৌতুক দিয়ে বিয়ে দিয়েছি। বিয়ের পর একদিনও শান্তিতে সংসার করতে পারেনি আমার মেয়ে। মেয়ের বাচ্চা হবার পর থেকে ৭ মাস যাবত ভরণ-পোষণ করছি। অসুস্থ মেয়েকে এভাবে পিটিয়েছে জামাই। আমি এমন জামাইয়ের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

দেন মোহরানার টাকা ফেরত চেয়ে গৃহবধূ সম্পা আক্তার বলেন, স্বামীর সংসারে শান্তি নেই আমার। আমার দেওয়া টাকা ফেরত চাই। আমি আর সংসার করব না। যে স্বামী অসুস্থ অবস্থায় আমার মারপিট করতে পারে। আমার বাচ্চাকে মেরে ফেলার কথা বলতে পারে। তার সংসার আমি করব না।

গৃহবধূর ভগ্নীপতি শেখ কামাল জানান, আমরা আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছি।

অভিযোগ অস্বীকার করে গৃহবধূর স্বামী ফারাজুল ইসলাম মুঠোফোনে জানান, শ্বশুরবাড়িতে দীর্ঘদিন ধরে আছে আমার স্ত্রী সম্পা আক্তার। আমি কয়েকবার নিতে গিয়েছিলাম। আসতে রাজি হয়নি আমার স্ত্রী। তাছাড়া শ্বশুরবাড়ির লোকজনও পাঠায়নি। এগুলোকে অনেক বিষয় রয়েছে। আপনার সাথে সাক্ষাতে কথা বলব।

বালিয়াডাঙ্গী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোসাব্বেরুল হক মুঠোফোনে জানান, ঘটনার বিষয়ে থানায় কোনো অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য